এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > একাধিক হেভিওয়েটের মুখে নাম উঠে আসতেই অস্বস্তি বাড়িয়ে আবার সারদায় মুকুল রায়কে সিবিআইয়ের সমন

একাধিক হেভিওয়েটের মুখে নাম উঠে আসতেই অস্বস্তি বাড়িয়ে আবার সারদায় মুকুল রায়কে সিবিআইয়ের সমন

Priyo Bandhu Media


রাজ্য-রাজনীতিতে অন্যতম চর্চিত বিষয় সারদা কান্ড – আর সেই সারদা কাণ্ডে আবার অস্বস্তি বাড়ল বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের। একসময় জল্পনা ছড়িয়েছিল সারদা মামলায় গ্রেপ্তার হতে পারেন তিনি, এমনকি কলকাতার বুকে দাঁড়িয়েই তৎকালীন বঙ্গ-বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক সিদ্ধার্থনাথ সিংহ ডাক ছেড়েছিলেন – ভাগ মুকুল ভাগ! কিন্তু, তারপরে সিবিআইয়ের দীর্ঘ জেরার মুখোমুখি হলেও, গ্রেপ্তার হতে হয় নি মুকুল রায়কে।

কিন্তু, কাকতালীয়ভাবে তারপরেই তৃণমূলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি ঘটে! তিনি নিজে জানিয়েছিলেন, সারদা কাণ্ডে তিনি নিজে কোনো অনিয়ম করেননি, ফলে সিবিআই যা জানতে চেয়েছে, সব বিষয়েই তিনি সহযোগিতা করেছেন। কিন্তু, নিন্দুকেরা বলে থাকেন, দলীয় নির্দেশ অমান্য করে তিনি এমন কিছু বলেন সিবিআইয়ের জেরায় – যার জেরে প্রবল অস্বস্তিতে পড়তে পারে শাসকদলের একাধিক হেভিওয়েট! যার জেরেই দলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি হয় এবং শেষ পর্যন্ত তিনি দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন!


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

মুকুল রায়ের বিরোধীরা অবশ্য দাবি করে থাকেন – সারদা মামলা থেকে রেহাই পেতেই নাকি তিনি গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন! কিন্তু, গেরুয়া শিবিরে নাম লেখালেও সারদা মামলা থেকে এখনই তিনি রেহাই পাচ্ছেন তা আবার স্পষ্ট হয়ে গেল। সূত্রের খবর, সারদা মামলা নিয়ে সিবিআই জোরদার তদন্ত শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই শাসকদলের একাধিক হেভিওয়েট নেতা ও প্রভাবশালীকে ডেকে জিজ্ঞসাবাদও করা হয়েছে। আর সেইসব জেরাতে বারেবারেই নাকি উঠে এসেছে মুকুল রায়ের নাম। আর তাই সিবিআই মনে করছে, এই তদন্তের জট ছাড়াতে পুনরায় মুকুল রায়কে জেরা করার দরকার।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই সিবিআইয়ের সমন পৌঁছে গিয়েছে মুকুলবাবুর কাছে। দলীয় কাজে আপাতত তিনি দিল্লিতে থাকায়, তিনি নাকি সাতদিনের সময়ও চেয়ে নিয়েছেন। অতীতে যেহেতু মুকুলবাবু সিবিআইকে ‘সহযোগিতা’ করেছেন, সেকথা মাথায় রেখে মুকুলবাবুকে সেই সাতদিন সময় দিয়েছে সিবিআই। কিন্তু, তারপরে তাঁকে সিবিআইয়ের মুখোমুখি হতেই হবে। কেননা, বহু প্রভাবশালীর মুখেই তাঁর নাম জেরার সময় বারেবারে উঠে এসেছে – ফলে, ওই সব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সারদা কাণ্ডে তাঁর ভূমিকা নিয়ে নতুন করে তাঁকে জবাবদিহি করতে হবে। সবমিলিয়ে, রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সারদা কাণ্ডে নতুন করে অস্বস্তি বাড়ল মুকুল রায়ের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!