এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অখিলেশ-মায়াবতীর জোটের পাশাপাশি আরো বড় ধাক্কা উত্তরপ্রদেশে বিজেপির জন্য

অখিলেশ-মায়াবতীর জোটের পাশাপাশি আরো বড় ধাক্কা উত্তরপ্রদেশে বিজেপির জন্য

২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরকারকে সরাতে তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আঞ্চলিক দলগুলিকে নিয়ে ফেডারেল ফ্রন্ট গঠন করার ডাক দিয়েছেন। আর তাঁর এই ফেডারেল ফ্রন্টে সবথেকে বড় ভরসা উত্তরপ্রদেশে অখিলেশ-মায়াবতীর জোট। এই জোট বাস্তবকার নিলে যে কি হতে পারে তা সদ্য সমাপ্ত বেশ কয়েকটি উপনির্বাচনে প্রমাণিত।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর এতদিন এতেই ঘুম উড়েছিল গেরুয়া শিবিরের। কেননা উত্তরপ্রদেশ হল ভারতীয় রাজনীতিতে ‘ডিসাইডিং ফ্যাক্টর’, ৮০ লোকসভা বিশিষ্ট এই রাজ্য থেকে যে দল বা জোট জট বেশি আসন ছিনিয়ে নিতে পারবে কেন্দ্রে সরকার গঠনের দিকে তারাই এগিয়ে যাবে। আর অখিলেশ-মায়াবতীর জোটের পাশাপাশি এইবার প্রকাশ্যে এল গেরুয়া শিবিরের আরো বেশি দুশ্চিন্তার কারণ।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের কলকাতা সংস্করণের প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, আগামী লোকসভা নির্বাচনের আগেই উত্তরপ্রদেশের এক ডজনেরও বেশি সাংসদ দল ছাড়তে পারেন। শুধু তাই নয়, এই সকল সাংসদ গিয়ে নাম লেখাতে পারেন সরাসরি ‘শত্রু’ শিবির সমাজবাদী পার্টি বা বহুজন সাম্যবাদী পার্টিতে। সুতরাং একে তো শক্তিক্ষয় হওয়ার আতঙ্ক, তার পাশাপাশি বিরোধী শিবিরে পৌঁছে যেতে পারে নিজেদের স্ট্রাটেজির নীল-নকশাও!

ওই সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, এই দলত্যাগের ঘটনা পশ্চিম ও পূর্ব উত্তরপ্রদেশে, যেখানে দলিত ও মুসলিম ভোটব্যাঙ্ক বেশি, বেশি হওয়ার সম্ভাবনা। আর এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই রাজনৈতিক মহলে রীতিমত শোরগোল পরে গেছে। ওই সাংসদরা শুধুমাত্র সাংসদ পদ বাঁচানোর জন্যই বিরোধী শিবিরে যেতে উৎসুক? নাকি হাওয়া ঘুরছে – কেন্দ্রে পুনরায় গেরুয়া শিবির আস্তে পারবে না, আগাম আঁচ করেই দল পাল্টাচ্ছেন তাঁরা? উত্তরের জন্য লোকসভার ফলাফল বেরোনো পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!