এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > প্রশাসনের ‘নির্দেশে’ বেতন বন্ধ দাড়িভিটা স্কুলের শিক্ষকদের, শিক্ষামন্ত্রী থেকে ব্যাঙ্ক কেউ ‘জানেন না’ কিছু

প্রশাসনের ‘নির্দেশে’ বেতন বন্ধ দাড়িভিটা স্কুলের শিক্ষকদের, শিক্ষামন্ত্রী থেকে ব্যাঙ্ক কেউ ‘জানেন না’ কিছু

উৎসবের মরশুমে মাসিক বেতন থেকে বঞ্চিত দাড়িভিট হাইস্কুলের শিক্ষকরা। ছাত্রমৃত্যুর ঘটনার মাস দেড়েক কেটে গেলেও এখনো রহস্যের নিষ্পত্তি করতে পারল না প্রশাসন। তদন্ত কর্মসূচি শেষ হল না,এমনকি ঘটনার জন্য শিক্ষকরা কতখানি দায়ী সেটাও সামনে এল না অথচ বেতন আটকে দেওয়া হল শিক্ষকদের। সামনেই দীপাবলি অথচ চরম দুর্ভোগের শিকার তাঁরা।

জেলা প্রশাসন ও ডি আই ব্যাঙ্কে চিঠি দিয়ে স্কুলের ১৬ জন শিক্ষক,৫ জন পার্শ্বশিক্ষক এবং ৩ জন অশিক্ষক কর্মীর বেতন হোল্ড করতে বলেছে,এমনটাই জানালেন সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক রায়গঞ্জ সেন্ট্রাল কো অপারেটিভ ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান মাসুদ মহম্মদ নাসিম আহসান। প্রশাসনের নির্দেশে এভাবে স্কুল শিক্ষকদের হয়রানি হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসতেই ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়।

এভাবে শিক্ষকদের বেতন আটকে রাখাকে যুক্তিসঙ্গত বলে মনে করছেন না এবিটিএ’র উত্তর দিনাজপুর জেলা সম্পাদক বিপুল মৈত্র। বললেন,শিক্ষকরা অন্যায় করলে নিশ্চয়ই আইনসম্মত শাস্তি হবে৷ তবে প্রাপ্য বেতন হোল্ডে রাখার সাংবিধানিক নিয়ম আছে কিনা সেদিক টিও খতিয়ে দেখার চেষ্টা করছেন তিনি। অন্যদিকে,তৃণমূল কংগ্রেসের শিক্ষা সেলের জেলা কনভেনার গৌরাঙ্গ চৌহান জানালেন, বিজেপির ডাকা ধর্মঘটের দিন রাজ্যের সমস্ত স্কুল ও অফিসই খোলা ছিল।

কিন্তু দাড়িভিট স্কুলের শিক্ষকরা সেদিন স্কুলে যাননি। তবে স্কুলে না গেলেও তাঁদের এসআই অফিসে হাজিরা দিতে হতো। সে কাজও তাঁরা করেননি বলে শিক্ষকদের শোকজ করা হয়েছে। আর এই কারণে তাঁদের শোকজ করা হয়েছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখা হবে বলে জানালেন তিনি।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

উল্লেখ্য,বেতন হোল্ডে রাখার গোটা ইস্যুটি নিয়েই ব্যাপক চাপে রয়েছেন দাড়িভিট স্কুলের শিক্ষকরা। উৎসবের মরশুমে যেখানে রাজ্যের বাকি শিক্ষকেরা মাস পয়লার বেতন নিয়ে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন,ব্যক্তিগত প্রয়োজন মেটাচ্ছেন, সেখানে এই সুখ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন দাড়িভিট স্কুলের শিক্ষকরা। প্রশাসনের নির্দেশে এটা লাগু হলেও এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী থেকে ব্যাঙ্ক আধিকারিক কেউই কিছু জানেন না দাবী করায় সমস্যাটি নিয়ে জটিলতা বাড়ছে আরো। শিক্ষা দপ্তরের আধিকারিকরা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে দেখার কথা বললেও কবে এই সমস্যার নিষ্পত্তি হবে তার কোনো ইঙ্গিত দিতে পারেননি কেউ। চিন্তায় রাতের ঘুম উড়েছে বেতন না পাওয়া দাড়িভিটের শিক্ষকদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!