এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > তৃণমূল ভাঙিয়ে কংগ্রেসের বড় শক্তি বৃদ্ধি করেই অধীর চৌধুরীর হুঙ্কার – তিনে তিন, তৃনমূলকে কবর দিন!

তৃণমূল ভাঙিয়ে কংগ্রেসের বড় শক্তি বৃদ্ধি করেই অধীর চৌধুরীর হুঙ্কার – তিনে তিন, তৃনমূলকে কবর দিন!

মুর্শিদাবাদ জেলা ও অধীর রঞ্জন চৌধুরী যেন একে অপরের সমার্থক হয়ে গিয়েছিল। নিজের ‘গরীবের রবিনহুড’ ভাবমূর্তি নিয়ে মুর্শিদাবাদ জেলাকে কার্যত ‘কংগ্রেসের-গড়’ করে ফেলেছিলেন তিনি। কিন্তু বিগত বিধানসভা নির্বাচনে তিনি বামফ্রন্টের সঙ্গে জোট করে তৃণমূল কংগ্রেসকে হারানোর পরিকল্পনা করতেই যেন – তাঁকে রাজনৈতিকভাবে শেষ করে দেওয়ায় মূল লক্ষ্য হয়ে দাঁড়ায় শাসকদলের।

মুর্শিদাবাদ জেলার পর্যবেক্ষক করা হয় দলের দাপুটে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে। শুভেন্দুবাবু দায়িত্ব নিয়েই, ক্রমশ ভাঙতে থাকেন কংগ্রেসকে। প্রথমে একে একে জেলার সবকটি পুরসভার দখল নেওয়ার পর – ধীরে ধীরে গ্রামাঞ্চলে কংগ্রেসকে ভাঙতে থাকেন। পঞ্চায়েত নির্বাচনে তারফলে তৃণমূল কংগ্রেস মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদও দখল করে। আর তারপরেই শুভেন্দুবাবু কংগ্রেস বিধায়কদের শাসকদলে যোগদান করাতে শুরু করেন।

হাতের মুঠোয় আরও সহজে প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে যোগ দিন –

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

সবমিলিয়ে শুভেন্দুবাবু মুর্শিদাবাদে পা রাখা মানেই কংগ্রেসের অবশ্যাম্ভাবী ভাঙ্গন এবং অধীরবাবুকে রাজনৈতিকভাবে শেষ করে দেওয়ার প্রকাশ্য হুঙ্কার। কিন্তু, এবার সেই অধীর রঞ্জন চৌধুরীর হাত ধরে উলটপুরাণ ঘটল মুর্শিদাবাদে। সাগরদিঘী বিধানসভার তৃনমূল কর্মী সহ অন্যান্য দলের প্রায় ৫ হাজার কর্মী তাঁর হাত ধরে জাতীয় কংগ্রেসের পতাকা হাতে নিলেন। সূত্রের খবর, মাস কয়েক আগেই কংগ্রেসের বেশ কিছু কর্মী তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন – তাঁরাই আবার কংগ্রেসে ফিরে এলেন।

অন্যদিকে, এতবড় দলবদল করিয়ে রীতিমত উজ্জীবিত অধীরবাবু হুঙ্কার ছাড়লেন শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। আজ বহরমপুর জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে এই দলবদল করিয়ে তিনি বলেন, মুর্শিদাবাদ জেলায় ৩ টি লোকসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস জিতবেই। বর্তমানে দুটি লোকসভা কংগ্রেসের আছে – যদি সুযোগ পায় তাহলে মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রও কংগ্রেস দখল করবে।

অধীরবাবু আরও বলেন, তৃনমূল কোন রাজনৈতিক দল নয়, এটা একটা সার্কাস! এরা লুঠ করে মেরে তোলা তুলে খাওয়ার দল। তাই তৃনমূল দলে আর কোন ভালো মানুষ থাকতে চাইছে না। আজকে যে ভাঙন শুরু হয়েছে আগামী দিনে সেটা আরও বাড়বে। মুর্শিদাবাদে লোকসভা ভোটে কংগ্রেস তৃনমূলকে উত্‍খাত করবেই করবে। মুর্শিদাবাদের শ্লোগান হবে “তিনে তিন তৃনমূলকে কবর দিন”।

Top
error: Content is protected !!