এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > জল্পনা বাড়িয়ে হেভিওয়েট বিজেপি নেত্রীর সঙ্গে একসঙ্গে ধুনুচি নাচলেন অধীর চৌধুরী

জল্পনা বাড়িয়ে হেভিওয়েট বিজেপি নেত্রীর সঙ্গে একসঙ্গে ধুনুচি নাচলেন অধীর চৌধুরী

রাজ্য-রাজনীতিতে বিগত বেশ কয়েকমাস যাবৎ অন্যতম চর্চিত বিষয় যে অধীর চৌধুরী কংগ্রেস ত্যাগ করবেন কিনা? আর করলেও তিনি বিজেপিতে যোগদান করবেন কিনা? এই নিয়ে অধীরবাবু নিজে বারবার প্রকাশ্যে বলেছেন যে, তিনি কোনোমতেই কংগ্রেস ছাড়ছেন না বা বিজেপিতে যোগদান করছেন না – কিন্তু, তবুও থামে নি বিতর্ক। কেননা, একদা অধীর-গড় বলে পরিচিত মুর্শিদাবাদে ঘাসফুল ফোটাতে মরিয়া হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা শুভেন্দু অধিকারী দাবি করেছেন অধীরবাবুর বিজেপিতে যোগদান নাকি সময়ের অপেক্ষা। অন্যদিকে, অধীরবাবুর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত হুমায়ুন কবীর বিজেপিতে যোগদান করে তাঁর ‘রাজনৈতিক গুরু’ অধীরবাবুকে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে খোলা আহ্বান জানিয়েছেন। এমনকি, বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ বা রাহুল সিনহাও অধীরবাবুকে বিজেপিতে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রকাশ্যেই।

এই অবস্থায়, কিছুদিন আগেই কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতির পদ থেকে অপসারিত হন অধীর চৌধুরী, তাঁর জায়গায় দায়িত্ত্ব পান সোমেন মিত্র। আর তারপরেই, অধীরবাবুর বিজেপিতে যোগদান নিয়ে জল্পনা গতি পায়। যদিও অধীরবাবু নিজে এই নিয়ে তারপর আর প্রকাশ্যে মুখ খোলেননি। এরপরে কিছুদিন আগেই অধীরবাবুর কংগ্রেস-ত্যাগ নিয়ে বড় রকমের জল্পনা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন বিজেপির তরফে লোকসভা নির্বাচনের রাজ্যের আহ্বায়কের দায়িত্ত্বপ্রাপ্ত নেতা মুকুল রায়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

মুকুলবাবু জানিয়েছিলেন, অধীরবাবুর সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে এবং তিনি নিশ্চিত কোন অবস্থাতেই অধীরবাবু তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করবেন না। উল্টে, আসন্ন পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে যদি কংগ্রেসের খারাপ ফল হয় এবং এটা স্পষ্ট হয়ে যায় যে কংগ্রেসের ক্ষমতায় ফেরত আসা সম্ভব নয়, তাহলে অধীরবাবুর পক্ষে আর কংগ্রেসে থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধিতা করা সম্ভব হবে না। স্বাভাবিকভাবেই, মুকুলবাবুর এ হেন ভবিষ্যৎবাণীর পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য-রাজনীতিতে বেশ আলোড়ন উঠেছিল।

আর সেই আলোড়নের রেশ ধরে এবার জল্পনা আরো বাড়িয়ে দিলেন স্বয়ং অধীর চৌধুরী। দিল্লিতে এমনিতেই বাঙালির সংখ্যা কম নয় আর সেই প্রবাসী বাঙালিদের হাত ধরে দিল্লিতে দুর্গাপুজোর সংখ্যাটাও নেহাত কম নয়। সেরকমই এক পুজো – পান্ডারা রোডে নয়াদিল্লি সর্বজনীন দুর্গোৎসব। সেখানে, মহানবমীর রাতে ধুনুচি হাতে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী – কিন্তু চমকের এখানেই শেষ নয়। তাঁর সঙ্গে ধুনুচি নাচে অংশগ্রহণ করলেন হেভিওয়েট বিজেপি নেত্রী ও লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন।

যে চিত্র দেখে দিল্লির আম-বাঙালি তো বটেই, চমকে গেছেন জাতীয় রাজনীতির হেভিওয়েটরা। কেননা, সুমিত্রাদেবীর সঙ্গে অধীরবাবুর সম্পর্ক সর্বদাই অম্ল-মধুর, দুজনের মধ্যে সর্বদাই বিরোধিতার সম্পর্ক। লোকসভা কক্ষে দুজনের বাদানুবাদ বরাবরই সংবাদের শিরোনামে এসেছে। এমনকি, অধীরবাবুর বাংলো খালি করা নিয়ে দুপক্ষের যা হয়েছিল – সেই ধুন্ধুমার কাহিনী এখনো স্পষ্ট সাংসদদের মনে। আর তাই প্রশ্নটা উঠেই যাচ্ছে, যুযুধান দুই পক্ষের বরফটা কি গলছে? কোথাও কি গেরুয়া শিবিরের কাছাকাছি আসার বার্তা দিচ্ছেন অধীরবাবু? নাকি, পুজোর আনন্দে রাজনৈতিক বেড়াজাল ভেঙে নিছকই সৌজন্যের চিত্র এটি? উত্তর পেতে উদগ্রীব রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!