এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > অধিকারী-গড় যে এখনও শুভেন্দু-ময় দীপাবলির সন্ধ্যায় বুঝিয়ে দিলেন তিনি নিজেই

অধিকারী-গড় যে এখনও শুভেন্দু-ময় দীপাবলির সন্ধ্যায় বুঝিয়ে দিলেন তিনি নিজেই

নিজের এলাকায় বিভিন্ন মন্ডপে কালি পুজোর উদ্বোধন করে রীতিমতো চমকে দিলেন রাজ্যের পরিবহণ তথা পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। গতকাল বিকেল থেকেই একটার পর একটা শ্যামা পুজোর উদ্বোধন করে চলেছেন তিনি। অবসর মেলেনি একটুও। গভীর রাত পর্যন্ত তাকে দেখা গিয়েছে তমলুক,নন্দকুমার,হলদিয়ার বেশ কিছু পুজো উদ্বোধণ করতে।

এদিন সকালেও বহু জায়গার পুজো মন্ডপ উদ্বোধন করেছেন তিনি। এদিন সকালে নিজের পাড়ার কাঁথি অ্যাথলেটিক ক্লাবের পুজোর উদ্বোধন করেন শুভেন্দু অধিকারী। এরপর বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিজের বিধানসভা এলাকায় নন্দীগ্রাম থানা ও আবাসিক বৃন্দের পুজো, নন্দীগ্রাম জোয়ার ভাঁটা ক্লাব সহ বেশ কয়েকটি পুজোর উদ্বোধন করেন শুভেন্দু অধিকারী।

এরপর সোজা চলে যান তমলুকে ফাইভ স্টার ক্লাব সহ বেশ কয়েকটি পুজো উদ্বোধন করতে। সেখানের কর্মসূচির পর চলে যান মহিষাদলের ৪০ বছরের ত্রিবেনী ক্লাবের পুজো উদ্বোধন করতে। তারপর সটান চলে যান শিল্প শহর হলদিয়ায়। সেখানে বেশ কয়েকটি পুজো উদ্বোধন করেন তিনি।

তমলুকের সাংসদ এদিন পুজো উদ্বোধন করার পাশাপাশি মঞ্চ থেকে সকলকে আলোর উৎসবের শুভেচ্ছা জানান। তার সঙ্গেই নিষিদ্ধ শব্দবাজি থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন,সঙ্গে শব্দের মাত্রা বজায় রাখার কথাও বলেন। এসবের সঙ্গেই পুজোতে প্রতিমা,মন্ডপ ও আলোকসজ্জার সঙ্গেই সমাজসেবামূলক কাজ করার বার্তা দেন মন্ত্রী।

এবং এই সমাজসেবামূলক কাজে সরকার সবরকম সহায়তা করবে বলেই জানান তিনি। এদিন নন্দীগ্রামের থানা ও আবাসিক বৃন্দের ও নন্দীগ্রাম জোয়ারভাঁটা ক্লাবে পুজো উদ্বোধনের অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে এলাকাবাসীর হাতে চারাগাছ এবং শীতবস্ত্রও তুলে দেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

উল্লেখ্য,দুর্গা পুজোর মতোই তমলুক হোক বা হলদিয়া,নন্দকুমার,কাঁথি সব জায়গাতেই থিমের পুজো নিয়ে মাতোয়ারা উদ্যোক্তারা। তমলুকেই সাধারণত সবথেকে বেশি থিমের পুজে হয়। এবারও সেরকম রীতি মেনেই কোথাও তৈরি হয়েছে মিসাইলের অনুকরণে মন্ডপ,কোথাও আবার প্রাচীন কাল থেকেই নারীদের বর্তমান অবস্থার ক্রমোন্নতির ধারাক্রম তুলে ধরা হয়েছে,কোথাও আবার অর্জুনের রথ থেকে শুরু করে তুষারের দেশের আদলে তৈরি করা হয়েছে মন্ডপ।

তমলুকের সঙ্গে টেক্কা দিয়েই প্রচুর টাকা খরচ করে নন্দকুমার,মহিষাদল ও হলদিয়ায় পুজো করা হয়। নন্দকুমারের আলেয়ার পুজো এবারের অর্ধ শতক পূর্ণ হওয়ায় ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয় করে মন্ডপ তৈরি করা হয়েছে। এবার তারা বুদ্ধদেবের শান্তির বার্তার আদলে মন্ডপ তৈরি করেছে। তৈরির দায়িত্বে রয়েছেন শিল্পী গৌরাঙ্গ কুইল্যা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ধ্যানমগ্ন বুদ্ধদেবের মূর্তি রয়েছে মন্ডপের মধ্যে। থিমের সঙ্গে সাজুয্য রেখে প্রতিমা সাজানো হয়েছে অভিনব সাজে। অন্যদিকে,মহিষাদলের ত্রিবেনী ক্লাবের পুজো ৪০ এ পদার্পন করায় প্রতিমা বানানো হয়েছে ৪০ ফুটের উচ্চতার। রামায়ণের নানা দৃশ্যের থিমে সেজে উঠেছে মন্ডপটি। পাশাপাশি মহিষাদলে নিহারিকা ক্লাব, পাইওনিয়ার, মহিষাদল শিল্পকৃতি, মহিষাদল আগমন ক্লাব শক্তির আরাধনায় ব্রতী হয়েছে।

Top
error: Content is protected !!