এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দলবিরোধী কাজে যুক্ত স্বীকার করে,মুচলেখা লিখিয়ে প্রার্থীকে ছাড়পত্র তৃণমূলের

দলবিরোধী কাজে যুক্ত স্বীকার করে,মুচলেখা লিখিয়ে প্রার্থীকে ছাড়পত্র তৃণমূলের

মনোনয়ন জমা দেওয়া তৃণমূল প্রার্থীদের ‘দুর্নীতিতে থাকব না’ মুচলেকা দিতে হল। গোঘাটের দুটি ব্লকে ১৫ টি পঞ্চায়েত ও দুটি পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূল সদস্যদের বিরুদ্ধে গাছ কেটে বিক্রি, নানা প্রকল্পের নাম উপভোক্তাদের কাছ থেকে টাকা আদায়, বালিকাদের বেআইনি ব্যবসায় জড়িত থাকা, বেনামে ঠিকাদারি ছাড়াও আরও অনেক অভিযোগ উঠেছে গত পাঁচ বছরে। আর তাই এই বছর তৃণমূল নিজেদের ভাবমূর্তি বজায় রাখতে গোঘাটের বিধায়ক মানস মজুমদারের তত্ত্বাবধানে মুচলেখার পরিবর্তে প্রার্থীকে মনোনয়ন ছাড়পত্র দিয়েছে বলে জানা গেছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এমনকি প্রার্থী কতদিন ধরে তৃণমূলের সাথে যুক্ত তাও নজরে রাখা হচ্ছে। মুচলেখায় যা আছে তা হলো, ‘আমাকে প্রার্থী তালিকায় স্থান দিলে সদস্য হিসাবে আমার পরিবার আগামী ৫ বছর নিজস্ব প্রভাব খাটিয়ে দলের অনুমতি ছাড়া গীতাঞ্জলি, কৃষি যন্ত্রপাতি-সহ অন্য পরিষেবার সহায়তা গ্রহণ করবে না। আমি ঠিকাদারি, বালিখাদ, টোল ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত থাকব না’। মুচলেখার কারণ জানতে চাওয়া হলে গোঘাটের বিধায়ক জানান, “সদস্যদের অনেকেই যে ঠিকাদারি, বালিখাদ-সহ নানা দলবিরোধী কাজে যুক্ত ছিলেন, তা অস্বীকার করার জায়গা নেই। মুখ্যমন্ত্রী চেয়েছিলেন দলে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির প্রার্থী থাকবেন। সেইমতোই এই ব্যবস্থা।” তৃণমূলের হুগলি জেলা সভাপতি তপন দাশগুপ্ত এই প্রসঙ্গে জানান, ”জেলার সর্বত্রই মনোনয়ন প্রত্যাহার পর্বের পরে ওই অঙ্গীকারপত্র দিতে বলা হয়েছে প্রার্থীদের। গোঘাটের ক্ষেত্রে বিধায়কের উদ্যোগে তা আগে হয়েছে।” বিরোধীদের এখন প্রশ্ন মুচলেখা না মানলে প্রার্থীদের কি শাস্তি হবে? এর পাল্টা জবাবে বিধায়ক জানিয়েছেন, ”আগের বার বহু ক্ষেত্রে দলীয় সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ বারও মুচলেকা অমান্য করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!