এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ‘মীরজাফরদের’ চিহ্নিত করে বহিস্কার শুরু তৃণমূলে, প্রথমেই কোপ হেভিওয়েট নেতাকে

‘মীরজাফরদের’ চিহ্নিত করে বহিস্কার শুরু তৃণমূলে, প্রথমেই কোপ হেভিওয়েট নেতাকে

‘মীরজাফরদের’ চিহ্নিত করে বহিস্কার শুরু তৃণমূলে, প্রথমেই কোপ হেভিওয়েট নেতাকে। দলে থাকা সত্ত্বেও দলবিরোধী কাজের জন্য দল থেকে বহিষ্কারের পথ গ্রহণ করলো তৃণমূল কংগ্রেস। সম্প্রতি দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলা পরিষদের প্রাক্তন কর্মাধক্ষ্য ও প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক সুভাশিষ পালকে দলবিরোধী কাজের জন্য বেশ কয়েক বছরের জন্য দল থেকে বহিস্কৃত করেছে তৃণমূল জেলা নেতৃত্ব। এরপর বালুরঘাটে সাংবাদিক বৈঠক বসিয়ে সুভাশিসবাবুকে দল থেকে বহিস্কার করার কারণও জানানো হয়। এদিনের বৈঠকে জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র বলেন, “সুভাষিশ পাল নিজে দলে থেকে খোদ তৃণমূলের বিরুদ্ধেই তাঁর পরিবারের লোকেদের কংগ্রেসের প্রার্থী করেছেন। এমনকি এলাকায় তৃণমূল প্রার্থীদের হারানোর জন্য নানারকমের কুকৌশলও অবলম্বন করে চলেছেন। জোড়াফুলের প্রতীকে দাঁড়ানো প্রার্থীদের বাড়িতে গিয়ে ভীতি প্রদর্শনও করা হচ্ছে।”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এদিন তিনি আরও বলেন, “যাঁরা দলে থেকে মিরজাফরগিরী করে চলেছেন তাঁরা যেন কখনই মনে না করেন যে জেলা বা রাজ্য নেতৃত্ব কিছুই জানতে পারছে না। তাহলে তাঁরা ভুল করছেন। এমনকি পঞ্চায়েত নির্বাচনে যাঁরা দলে থেকেও নির্দল প্রার্থী দাঁড় করিয়েছেন তাঁদেরও উপর নজর রাখা হচ্ছে।” এমনকি এদিন তিনি হুঁশিয়ারি জারি করে বলেন, “শুভাশিস পালের সঙ্গে যাঁরাই যোগাযোগ রাখবেন তাঁদের প্রত্যেককেই তৃণমূলের শত্রু বলে গন্য করা হবে।” এই বৈঠকে এদিন সংসদ অর্পিতা ঘোষ হুঁশিয়ারি সহকারে জানান, “দল বিরোধি কোন কাজই বরদাস্ত করা হবে না। মানুষের ভোটে জেলার সমস্ত আসনে তৃণমূলকে জিতিয়ে দেখাতে হবে। দলের শত্রুদের বন্ধুদেরও শত্রু বলেই চিহ্নিত করা হবে।” এই সমস্ত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা জবাব দিয়ে শুভাশিসবাবু বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আদর্শ মেনে তিনি দল করেন আর তাই কারও অভিযোগে তিনি গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

আপনার মতামত জানান -
Top