এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > শিলিগুড়ির প্রতি বঞ্চনার অভিযোগে এবার প্রতিবাদ জানাতে নয়া পদক্ষেপ সিপিআইএম-এর

শিলিগুড়ির প্রতি বঞ্চনার অভিযোগে এবার প্রতিবাদ জানাতে নয়া পদক্ষেপ সিপিআইএম-এর

রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার শিলিগুড়ি-এমনটাই রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে এবার বিধানসভার বাদল অধিবেশনকেই প্রতিবাদ জানানোর ভূমি হিসাবে বেছে নিলেন শিলিগুড়ির বামফ্রন্ট সমর্থিত মেয়র অশোক ভট্টাচার্য। জানালেন অধিবেশন শুরু হলেই এটা নিয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচি গ্রহন করা হবে মেয়রের তরফ থেকে। অন্যদিকে, শিলিগুড়ির উন্নয়নকল্পে রাজ্য থেকে প্রাপ্য অর্থ পেতে এখনই আইনের পথে না হাঁটলেও বিষয়টি শাসকদলের নজরে আনতে নানারকম পরিকল্পনা করার ছক কষছে শিলিগুড়ি পৌরনিগম,এমনটাই জানা যাচ্ছে।

প্রিয় বন্ধু বাংলার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ – Priyo Bandhu Bengali

—————————————————————————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

গতকাল সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অশোকবাবু জানান যে শিলিগুড়ির মানুষের সঙ্গে একরকম যুদ্ধ করছে তৃণমূল সরকার। এই শহর বামফ্রন্টের আওতায় থাকায় উন্নয়নখাতে প্রাপ্য প্রায় ১২০০ কোটি টাকা মিলছে তাদের রাজ্যসরকারের তরফ থেকে । রাজ্যের সব পৌরসভা অর্থ পেলেও বঞ্চিত হচ্ছে শিলিগুড়ি। স্থানীয়ভাবে কিছু কর থেকে যে আয় হয়, আয়ের পথও বন্ধ করতে নানান রকম ষড়যন্ত্র করছে শিলিগুড়ির ঘাসফুল শিবির এবং রাজ্য সরকার। একাধিক ছোটো প্রকল্প ছাড়াও বিভিন্ন বড় প্রকল্পে কিস্তির টাকা আটকে রেখে শিলিগুড়ির উন্নয়ন রোধ করা হচ্ছে বলেই অভিযোগের আঙুল তুললেন রাজ্যের তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে। এরসঙ্গে তিনি আরো জানান যে, দিল্লিতে গিয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে কেজরিওয়ালের পাশে দাঁড়াতে দুবার ভাবলেন না মুখ্যমন্ত্রী। অথচ নিজের রাজ্যের একটি শহরের প্রতি এমন বঞ্চনা করছেন। এনিয়ে ২০ জুলাই বিধানসভা শুরুর পর প্রতিবাদ জানানো হবে। প্রয়োজনে আইনি পন্থা অবলম্বন করা হবে বলেও জানালেন মেয়র। এর পাশাপাশি মেয়র বলেন,পৌর এলাকায় নানা প্রকল্পের কাজ করাতে রাজ্যসরকারের তরফ থেকে SJDA-এর কাছে টাকা আসবে এমন খবরও শোনা গেছিলো। কিন্তু তারপর সে ব্যাপারে আর কোনো গরজ দেখা যায়নি তৃণমূল সরকারের। এটা বলে তিনি সরকারকে খানিক তোপ দেগেই বলেন যে সরকারের মনে রাখা উচিত আইন ও সংবিধান আছে। যে কাজ যাদের করার কথা তাদের দিয়েই করাতে হবে। এটাই আইন। প্রতিহিংসা মেটাতে শিলিগুড়ির মানুষগুলোকে বঞ্চনা করে সেই অর্থ অন্য সংস্থার মাধ্যমে খরচ করার চেষ্টা সংবিধান এবং আইন কোনোটাতেই স্বীকৃত নয়।

অন্যদিকে,শিলিগুড়ির নানা সমস্যার খতিয়ান প্রকাশ্যে এনে গতকাল মেয়র মন্ত্রী গৌতম দেবকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না। জানালেন, পৌর এলাকায় পানীয় জলেরও সংকট আছে। অথচ গৌতমবাবুকে কখনোই সমস্যা মেটাতে এগিয়ে আসতে দেখা যায় না। এ কটাক্ষের পাল্টা জবাবও পাওয়া গেলো গৌতম দেবের কাছ থেকে। তিনি আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে ঘাড় কাত করে জানান যে শিলিগুড়ির উন্নয়নে মুখ্যমন্ত্রী বিশেষ জোর দিচ্ছেন। পৌরনিগমই ঠিকঠাক কাজ করছে না। শুধু বোর্ড নিয়েই তাঁদের যত মাতামাতি। এর পাশাপাশি তিনি সাফাই দিতে আরো জানান যো,শহরে কোন কোন প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় তার জন্য তাঁরা কাউন্সিলরদের কাছে তালিকা চেয়েছেন। তা পেলেই উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর ও SJDA অবিলম্বে কাজ শুরু করবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!