এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শাসকদলের ‘উন্নয়নের জোয়ারে’ নাম লেখানোর ধারা অব্যাহত পঞ্চায়েতে বিজেপি প্রার্থীদের

শাসকদলের ‘উন্নয়নের জোয়ারে’ নাম লেখানোর ধারা অব্যাহত পঞ্চায়েতে বিজেপি প্রার্থীদের

হলদিয়ার উন্নয়ন ব্লকের বাড়বাজিতপুর গ্রামের ৪৮ নম্বর বুথের বিজেপির প্রার্থী রাধাশ্যাম দাসও নাম লেখালেন তৃনমূলে। ২০১৮ এর পঞ্চায়েত নির্বাচন পর্বে এ নজির নতুন নয়। আগেও অনেক এলাকাতেই এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি দেখা গেছে। এদিন হলদিয়া উন্নয়ন ব্লক নির্বাচন কমিটির সদস্য মানস দাস রাধাশ্যামবাবুর হাতে তুলে দিলেন দলীয় পতাকা। এই বুথেই কিন্তু তৃণমূলের প্রধান বিরোধী বিজেপি শিবির।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এদিন সদ্য তৃণমূলে যোগ দিয়ে রাধাশ্যামবাবু বলেন, “প্রথম থেকে বামেদের সঙ্গে ছিলাম। কিন্তু পরে বিজেপিতে যোগদান করেছিলাম। স্থানীয়রা বিজেপি প্রার্থী হিসাবে চেয়েছিল বলেই প্রার্থী হয়েছিলাম। এখন আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি। বর্তমান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের কাজে খুশি হয়ে আমি তৃণমূলে যোগদান করেছি। তৃণমূলের প্রার্থী শত্রুঘ্ন মালাকারকে যাতে এলাকার মানুষ ভোট দেয় তার জন্য আমি লিফলেট দিয়ে সকলকে আহ্বান জানিয়েছি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নকে এলাকায় এলাকায় ছড়িয়ে দিতেই আমার তৃণমূলে সামিল হওয়া। ”এ ব্যাপারে ওই এলাকারই তৃণমূল প্রার্থী শত্রুঘ্ন মালাকার জানান যে তাঁরা ২০০৯ সাল থেকে ভোটে জিতে একনাগাড়ে এলাকার উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। এলাকার মানুষ রাধাশ্যামবাবুকে ভুল বুঝিয়ে তাঁদের দলে টেনেছিলো। কিন্তু এখন তিনি নিজের ভুল বুঝতে পেরে তৃণমূলের শরিক হয়ে উন্নয়ন কার্যে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক। তাকে সহকর্মী রেখেই আগামী দিনে আরো উন্নয়ন করতে চায় ঘাসশিবির। একই বিষয়ে হলদিয়া উন্নয়ন ব্লকের তৃণমূলের নির্বাচন কমিটির আহ্বায়ক তথা জেলা প্রাথমিক শিক্ষাসেলের চেয়ারম্যান মানস দাসকে প্রশ্ন করা হলে তিনিও জানান যে রাধাশ্যামবাবু নিজের ভুল বুঝতে পেরে তৃণমূলের উন্নয়নের পথের সঙ্গী হতে আবেদন করছিলেন। তাই তাকে তৃণমূল সহযোদ্ধা হিসাবে গ্রহণ করেছে। সবাইকে নিয়েই আগামী দিনে হলদিয়া উন্নয়ন ব্লকে আরো উন্নয়ন করার ইচ্ছা রাখেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!