এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে, সব জেলাতেই বাড়তি মনোনয়ন, প্রবল অস্বস্তিতে শাসকদল

গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে, সব জেলাতেই বাড়তি মনোনয়ন, প্রবল অস্বস্তিতে শাসকদল

পঞ্চায়েত নির্বাচনে আসনের তুলনায় অতিরিক্ত মনোনয়নপত্র জমা পড়ায় আশঙ্কায় তৃণমূলনেতারা।তাদের ভয় অতিরিক্ত মনোনয়ন বাতিল করাতে না পারলে দলভুক্ত প্রার্থীদের সঙ্গেও লড়তে হতে পারে তাদের।তাই সোমবার তৃণমূল শীর্ষনেতাদের ব্যস্ততা দেখা যায় অতিরিক্ত মনোনয়ন প্রত্যাহারের জন্য।তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান যে প্রত্যাশীদের অনেকেই মনোনয়ন পত্র জমা দিলেও দলীয় প্রতীক যারা জমা দেবেন তারাই প্রার্থী।তবে দলীয় সূত্রে খবর যে এবারে ৫০ শতাংশ মহিলা প্রার্থী এবং বেশিরভাগই প্রথমবার প্রার্থী তাই কাগজপত্র জমা দেওয়ার স্বচ্ছতায় সংশয় রয়েছে।তাই মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষদিন ছবি পাল্টাবে এমনটাই দাবী তৃণমূল নেতাদের।প্রতীক বিলি এবং আগের বারের জয়ী দলদের বেশি সুযোগ দিয়েছেন রাজ্য।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

দক্ষিণ ২৪ পরগনার প্রতীক বিলির ভারপ্রাপ্ত নেতা শুভাশিস চক্রবর্তী আস্বস্ত করেছেন জেলা পরিষদে অতিরিক্ত প্রার্থী থাকবে না।আবার উঃ ২৪ পরগনার তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন যে জেলা পরিষদস্তরে সমস্যা থাকলেও মিটে যাবে।দু একটা আসন তেমন বাঁধা তৈরি করবে না।তবে পঞ্চায়েত সমিতি ও গ্রাম পঞ্চায়েত স্তরে এটাই বড় সমস্যার আকার নিয়েছে।উঃ ২৪ পরগনার খড়ূদায় গতবার নির্বাচনে বিজয়ী ২৩ জন সদস্যকে বাদ দেওয়া নিয়ে ভীষণ বিবাদ হয়েছিলো।নদীয়াতেও এরকম মতবিরোধ এর নজির আছে।
সংবাদিক সূত্রের খবর, উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের ৫৭ আসনে তৃণমূলের ১১৯ জন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৮১ আসনে তৃণমূলের মনোনয়ন ১৩২টি। জলপাইগুড়ির ১৯ আসনের জন্য ২৮ টি, পূর্ব মেদিনীপুরে ৬০ টি আসনে ৭৯টি, পশ্চিম মেদিনীপুরে ৫১ আসনে ৫৫ টি মনোনয়ন জমা দেওয়া হয়েছে তৃণমূলের তরফ থেকেই।উক্ত অতিরিক্ত মনোনয়ন পত্রের প্রত্যাহার কতোটা কার্যকারী হবে আর তার ফলে পঞ্চায়েত ভোট কীভাবে প্রভাবিত হবে সেটাই ভাবাচ্ছে শাসক তথা বিরোধীশিবিরকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!