এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিজেপি বিরোধিতা কংগ্রেসের নেতৃত্ত্বে নয়, সামনে থেকেই নেতৃত্ত্ব দেবেন মমতা ব্যানার্জি

বিজেপি বিরোধিতা কংগ্রেসের নেতৃত্ত্বে নয়, সামনে থেকেই নেতৃত্ত্ব দেবেন মমতা ব্যানার্জি

বিজেপি বিরোধিতা কংগ্রেসের নেতৃত্ত্বে নয়, সামনে থেকেই নেতৃত্ত্ব দেবেন মমতা ব্যানার্জি। ২০১৯ কে লক্ষ্য করে কংগ্রেসকে চাপে রাখার রণনীতিতে নেমেছে তৃণমূল। জানা গেছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলকে নির্দেশ দিয়েছেন, “কংগ্রেসের নেতৃত্বে চলা নয়, জাতীয় রাজনীতিতে বিরোধীদের একেবারে সামনে থাকতে হবে তৃণমূল কংগ্রেসকে।”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এতদিন পর্যন্ত মনীষীদের জন্মদিন, মৃত্যুদিনে তাঁদের মূর্তিতে মালা দিয়ে শ্রদ্ধার্ঘ অনুষ্ঠান পালন করতেন লোকসভার স্পিকার সহ সরকার ও বিরোধী দলের নেতারা। কিন্তু এবছর আম্বেদকরের জন্মদিন পালন অনুষ্ঠানে মমতা তড়িঘড়ি দিল্লিতে পাঠালেন তৃণমূলের রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও ব্রায়েনকে। এসপি, বিএসপি, এনসিপির কেউই এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না। জানা গেছে, তৃণমূল এবার রণনীতিতে দুটি রণকৌশল নিয়েছে। প্রথমটি হলো, সংসদ চলাকালীন কংগ্রেস সহ বিজেপি বিরোধী দলগুলিকে একত্রিত করা। দ্বিতীয়টি হলো , আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে আসনচ্যুত করতে বিরোধীদের একটি করা। এক্ষেত্রেও কংগ্রেসকে সাথে রাখতে চায় তৃণমূল।প্রথম লক্ষ্যটি যে ফলপ্রসূ হয়েছে তার প্রমান হলো সম্প্রতি সংসদ চত্বরে গান্ধী মূর্তির সামনে সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধী সহ প্রায় দুশো জন সাংসদ যে পোস্টার নিয়ে ধর্ণা দিয়েছিলেন সেগুলি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিস্ক প্রসূত। গোটা দেশের দলিত সম্প্রদায় যখন নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে ফুঁসছে ঠিক তখনই রণনীতি কাজে লাগিয়ে আম্বেদকরের জন্মদিনে তৃণমূল প্রতিনিধি পাঠালেন মমতা। এদিন আম্বেদকরের জন্মজয়ন্তী পালন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন, দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল ও হরদীপ সিং পুরী, কংগ্রেসের গুলাম নবি আজাদ ও মল্লিকার্জুন খাড়গে এবং তৃতীয় দলের প্রতিনিধি হিসেবে ছিলেন ডেরেক।‌

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!