এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর – আগামী মার্চের মধ্যেই সাড়ে 22 হাজার স্কুল শিক্ষক নিয়োগ, জানালেন চেয়ারম্যান

চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর – আগামী মার্চের মধ্যেই সাড়ে 22 হাজার স্কুল শিক্ষক নিয়োগ, জানালেন চেয়ারম্যান

অবশেষে এবার আশার আলো দেখতে পারেন রাজ্যের চাকরিপ্রার্থীরা। মঙ্গলবার এসএসসির কেন্দ্রীয় কার্যালয় আচার্য ভবনে সেই চাকরি প্রার্থীদের মুখে হাসি ফোটাতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান সৌমিত্র সরকারের ঘোষণায় শুরু হয়েছে তীব্র জল্পনা।

সূত্রের খবর, এদিন সৌমিত্র বাবু ঘোষণা করেন, “স্কুল সার্ভিস কমিশনে আগামী মার্চের মধ্যে আরও 22 হাজার 678 জন চাকরি পাবেন।” পাশাপাশি উচ্চ মাধ্যমিকের 13 হাজার 80 টি শূন্য পদের জন্য যে ভেরিফিকেশনের কাজ চলছে তা চলতি মাস বা আগামী ফেব্রুয়ারির শুরুতেই শেষ করা হবে বলেও এদিন জানিয়ে দিয়েছেন এসএসসির এই নতুন চেয়ারম্যান। অন্যদিকে আজ সন্ধ্যায় প্রধান শিক্ষক পদের জন্য 2,243 জনের প্যানেল প্রকাশ করা হবে বলেও জানা গেছে।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণীর 5711 টি পদে সুপারিশের ভিত্তিতে 4889 জনের তালিকা ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে বাকি 822 টি পদের ক্ষেত্রে কোনোরূপ যোগ্যপ্রার্থী পাওয়া যায়নি বলেই খবর। অন্যদিকে প্রথম দফায় মাধ্যমিক স্তরের 6,524 জনের নাম পাঠানো হলেও পরবর্তীতে চলতি মাসের শেষ বা ফেব্রুয়ারির শুরুতে ফের 6 হাজার 381 জনের তালিকা পাঠানো হবে।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, ক্লার্কের 2057 টি শূন্যপদের মধ্যে 2 হাজার 13 জনের তালিকা পাঠালেও বাকি 44 টি পদে প্রার্থী মেলেনি। অন্যদিকে গ্রুপ ডিতে 3955 টির মধ্যে 3 হাজার 847 জন প্রার্থী মিলেছে। কিন্তু এখনও 108 টির মত শূন্যপদ রয়েই গেছে। আর ইতিমধ্যেই সমস্ত তালিকা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সম্প্রতি নবান্নে রাজ্যের কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যক্ষদের নিয়ে এক বৈঠক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইন্টার্ন শিক্ষকের বিষয়টি ঘোষণা করেছেন। তারপর থেকেই বিভিন্ন মহলে থেকে জল্পনা ছড়াতে শুরু করে যে এসএসসিকে উঠিয়ে দেওয়া হবে।

এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে সেই ব্যাপারে মুখ খুলে এসএসসি চেয়ারম্যান সৌমিত্র রায় বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী ইন্টার্ন শিক্ষকের বিষয়টি প্রস্তাবে তুলে ধরেছেন। শিক্ষা দপ্তর তার নিয়মাবলী তৈরি করছে। কিন্তু শিক্ষা দপ্তর সেই প্রক্রিয়ায় এসএসসিকে রাখবে কিনা সেটা ঠিক হয়নি। আমরা এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানাচ্ছি। কিন্তু কিছু কিছু সংবাদমাধ্যম বলছে যে এসএসসি এবার উঠে যাবে, বেকাররা চাকরি পাবে না। এটা বাজে কথা। এসএসসির মাধ্যমে নিয়মিত শিক্ষক নিয়োগ চলবে।”

অন্যদিকে ইন্টার্ন শিক্ষক নিয়ে এসএসসি চেয়ারম্যানের মুখে স্তুতি শোনা গেলেও এই ব্যাপারে ইতিমধ্যেই আন্দোলনে নামতে শুরু করেছে বিরোধীরা। এদিন সিপিএমের ছাত্রসংগঠন এসএফআই রাজ্যের বিরুদ্ধে তীব্র তোপ দাগেন। পাশাপাশি বৃহস্পতিবার এই ব্যাপারে ডিআই অফিসে বিক্ষোভ দেখানোরও হুঁশিয়ারি দেন তাঁরা।

অন্যদিকে এই ব্যাপারে আগামী 21 শে জানুয়ারি শিক্ষামন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি জমা দেওয়ার কথা জানিয়ে দিয়েছেন বিজেপি ঘনিষ্ঠ ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইমারি ট্রেইন্ড টিচার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি পিন্টু পাড়ুই। অন্যদিকে ইন্টার্ন নিয়োগ না করে 17 হাজার বাড়তি শিক্ষককে বদলি করলেই তা বাস্তবায়িত হবে বলে জানিয়েছেন তৃণমূল শিক্ষা সেলের জয়দেব গিরি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!