এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > জঙ্গলমহলের ‘হাসি’ মুছে পঞ্চায়েতের আগেই মাওবাদী ‘জুজু’ দেখছে শাসকদল

জঙ্গলমহলের ‘হাসি’ মুছে পঞ্চায়েতের আগেই মাওবাদী ‘জুজু’ দেখছে শাসকদল

জঙ্গলমহলের ‘হাসি’ মুছে পঞ্চায়েতের আগেই মাওবাদী ‘জুজু’ দেখছে শাসকদল। জঙ্গলমহলকে মাওবাদী মুক্ত করার কৃতিত্ব প্রচারে বারংবার নিজের নামই উল্লেখ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ফের বেলপাহাড়ি অঞ্চলে ‘আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চ’ নামে একটি মাওবাদী ঘাঁটি তৈরী হয়েছে বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

জানা গেছে,আদিবাসী গ্রামগুলিতে নির্দল প্রার্থীদের ভোটে জেতানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই মাওবাদী সংগঠনের প্রার্থীরা বৈঠক করছে ও প্রচার চালাচ্ছে। আমনকি বেলপাহাড়ি ব্লকের বাঁশপাহাড়ি, ভুলাভেদা ও শিমুলপাল পঞ্চায়েত এলাকায় তৃণমূল কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ওই সংগঠনের প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে। পুরো বিষয়টি খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঝাড়গ্রামের এক পুলিশ আধিকারিক। ঝাড়গ্রামের তৃণমূল জেলা সভাপতি অজিত মাইতি অভিযোগ সহকারে জানান, “সিপিএম, বিজেপি এবং মাওবাদীদের মিলিত শক্তি ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে। ওরা ভুলাভেদা, বাঁশপাহাড়ির কিছু আসনে গণ্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করছে।” মুখ্যমন্ত্রীর দাবি অনুযায়ী রাজ্য এখন মাওবাদী মুক্ত। এই প্রসঙ্গে প্রশ্ন উঠলে অজিতবাবু জানান, ”ঝাড়খণ্ড থেকে মাওবাদীদের ডেকে এনেছে সিপিএম ও বিজেপি।” ঝাড়গ্রামের সিপিএম জেলা কমিটির সদস্য ডহরেশ্বর সেন এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ”মাওবাদীদের সঙ্গে তো বরাবর তৃণমূলেরই যোগ।” বিজেপির জেলা সভাপতি সুখময় শতপথী এদিন জানান, ”মাওবাদীদের সঙ্গে হাত মিলিয়েই তৃণমূল ক্ষমতায় এসেছে। আমাদের সঙ্গে মাওবাদীদের সম্পর্ক নেই।” এদিকে আদিবাসী সাঁওতালদের সর্বোচ্চ সংগঠন ‘ভারত জাকাত মাঝি পারগানা মহল’-এর ‘জগ পারগানা’ (জেলা নেতা) রবিন টুডু এই ঘটনার সাথে তাঁদের সংযোগ অস্বীকার করেছেন বলে জানা গেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!