এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ইসলামপুর কাণ্ডের জেরে নিয়োগ নিয়ে নতুন নির্দেশিকা ‘বাড়তি শিক্ষকদের’- জানুন বিস্তারিত

ইসলামপুর কাণ্ডের জেরে নিয়োগ নিয়ে নতুন নির্দেশিকা ‘বাড়তি শিক্ষকদের’- জানুন বিস্তারিত

সম্প্রতি শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে প্রবল অশান্তিতে উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুরের দাড়িভিটে উত্তপ্ত হয় পরিস্থিতি। যেখানে মৃত্যু হয় দুই তরতাজা ছাত্রের। আর এই দাড়িভিট কান্ডের পরই একাংশের নজরে আসে যে, এই উত্তর দিনাজপুর জেলায় 425 জনকে উচ্চমাধ্যমিক স্কুলগুলিতে নিয়োগ করা হলেও গোটা জেলায় মোট শূন্যপদ রয়েছে মোটে 68 টি। আর এরপরই অনেকে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন যে, এই বাড়তি শিক্ষকদের দিয়ে ঠিক কি করানো হবে?

অবশেষে এই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া শুরু হয়েছে। সূত্রের খবর, এই বাড়তি শিক্ষকদের একাংশকে এসএমএস মারফত স্কুল সার্ভিস কমিশনে ডেকে পাঠানো হচ্ছে। আর তারপরই তাদের অন্য কোনো জেলা স্কুলে যোগ দেওয়ার জন্য নতুন করে একটি রেকমেন্ডশনের চিঠি ধরানোর পাশাপাশি পুরনো রেকমেন্ডশনের চিঠি ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, বিগত দুই সপ্তাহে এইরকম প্রায় 200 জন শিক্ষককে এই চিঠি দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত 13 সেপ্টেম্বর শিক্ষা দপ্তর থেকে বিভিন্ন শিক্ষকদের নিয়োগপত্র দেওয়া হলে সেই নিয়োগপত্র নিয়ে জেলার বিভিন্ন স্কুলে যোগাযোগ করেন শিক্ষকরা। আর এরপরই তারা দেখতে পান যে, যে সব স্কুলে তাদের নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছে সেখানে বাস্তবে কোনো শূন্যপদই নেই।

আর এই ঘটনার পরই জেলা স্কুল পরিদর্শকের তরফ থেকে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকদের শূন্যপদের একাংশকে কনভার্সন করে ওই শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করা হয়। কিন্তু এই পদ্ধতিকে গত 20 সেপ্টেম্বর অবৈধ বলে ঘোষণা করেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। আর শিক্ষামন্ত্রীর এহেন ঘোষনায় প্রবল আশঙ্কা ও উদ্বিগ্নতায় দিন কাটাতে শুরু করেন এই নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকেরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন এই প্রসঙ্গে সেই নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকরা বলেন, “উত্তর দিনাজপুর জেলার এই নতুন নিয়োগপ্রাপ্তদের এসএমএস পাঠিয়ে ডেকে অন্য স্কুলে পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।” তবে এই নিয়োগে কোনরূপ কাউন্সেলিং না হওয়ায় ইতিমধ্যেই এই বিষয়টি নিয়ে শিক্ষামহলে বিস্তর প্রশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে‌। কেন কাউন্সেলিং হচ্ছে না! এবার ইসলামপুরের দারিভিট কাণ্ডের জেরে ফের নতুন এক নির্দেশিকা এল নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!