এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বেতন বাড়ছে না দীর্ঘদিন ধরে, উত্তর নেই সরকারের, আতান্তরে রাজ্যের হাজার হাজার শিক্ষক

বেতন বাড়ছে না দীর্ঘদিন ধরে, উত্তর নেই সরকারের, আতান্তরে রাজ্যের হাজার হাজার শিক্ষক

বেতন বাড়ছে না দীর্ঘদিন ধরে, উত্তর নেই সরকারের, আতান্তরে রাজ্যের হাজার হাজার শিক্ষক। সম্প্রতি পার্শ্বশিক্ষদের একটি রাজ্য সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের বেতন বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করেন। অর্থ দফতর মঞ্জুর করলেই এই প্রস্তাবটি কার্যকরী হবে এমনটাই জানা গেছে সর্বশিক্ষা দফতর সূত্র থেকে। কিন্তু বেতন না বাড়ায় এদিকে উদ্বেগ বেড়েছে মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্র(এমএসকে) ও শিশু শিক্ষাকেন্দ্রের(এসএসকে) সাথে যুক্ত রাজ্যের প্রায় ৪৫ হাজার শিক্ষকের। এসএসকে গুলিতে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত ও এমএসকে গুলিতে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পির্যন্ত পোড়ানো হয়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এই দুই স্কুলে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১১ লক্ষ। মূলত অর্থনৈতিক দিক থেকে দুর্বল, তফসিলি ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীরাই এই স্কুল গুলিতে আসে এবং এদের স্কুল ছুটের প্রবণতাও বাড়ছে বলে জানা গেছে রাজ্যের সর্বশিক্ষা বিভাগের এক সমীক্ষা থেকে। স্কুলগুলি নানা বঞ্চনার স্বীকার হওয়ায় স্কুলছুটের প্রবণতা বাড়ছে বলে জানা গেছে। এদিকে এই সব স্কুলের মধ্যে এসএসকের শিক্ষকদের বেতন ৫৯০০ টাকা ও প্রধান শিক্ষকের বেতন ৬১০০ টাকা এবং এমএসকের শিক্ষকদের বেতন ৮৯৩০ টাকা ও প্রধান শিক্ষকের বেতন ১০৪০০ টাকা। এদিন রাজ্যের ‘এসএসকে-এমএসকে যৌথ শিক্ষক সমিতি’র সভাপতি মহম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ”দীর্ঘদিন ধরে বেতন বাড়েনি। স্কুলগুলি চলে সর্বশিক্ষা প্রকল্পের টাকায়। একই প্রকল্পের অধীনে পার্শ্বশিক্ষকদের বেতন বাড়ানো হচ্ছে। অথচ, আমাদের ক্ষেত্রে এখনও কিছু হল না। এই অল্প বেতনে সংসার চালানো অসম্ভব।”জানা গেছে সর্বশিক্ষা প্রকল্প থেকে এই দুই ধরণের স্কুলের শিখদের বেতনের টাকা আসে কেন্দ্রের মারফত শিক্ষা দফতরে। এরপর সেখান থেকে সেই টাকা আসে পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতরে। মুখ্যমন্ত্রীর পার্শ্বশিক্ষদের বেতন বৃদ্ধির ঘোষণার পড়ি এদিন এই দুই স্কুলের শিক্ষকরা পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতরে তাঁদের বেতন বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে একটি স্মারকলিপি জমা দেয়। এই বিষয়ে এই দু’ধরনের স্কুলের দায়িত্বপ্রাপ্ত পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতরের যুগ্মসচিব স্বাতী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ”এসএসকে-এমএসকে শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাব রাজ্য সর্বশিক্ষা দফতরের পাঠিয়েছি। এখনও উত্তর আসেনি।” বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রীর বিবেচনাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজ্য শিক্ষা দফতরের এক পদস্থ আধিকারিক।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!