এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কেন্দ্রীয়বাহিনী ছেড়ে অন্য রাজ্যের পুলিশ নিলেও তো গেরুয়াবাহিনী, মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ বিজেপির

কেন্দ্রীয়বাহিনী ছেড়ে অন্য রাজ্যের পুলিশ নিলেও তো গেরুয়াবাহিনী, মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ বিজেপির

রাজ্যের দাবিকে মান্যতা দিয়ে তিনদফায় নয়, শেষ পর্যন্ত একদফায় পঞ্চায়েত ভোট সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। আর তারপর থেকেই প্রশ্ন চিহ্নের মুখে নির্বাচন ব্যবস্থার সুরক্ষা। রাজ্য সরকার জানিয়েছেন যে ৫৮ হাজার ৪৬৭টি বুথে ভোট নেওয়া হবে অথচ রাজ্যের কাছে সশস্ত্র পুলিশ আছে মাত্র ৪৬ হাজার, আর লাঠিধারী পুলিশ আছে ১২ হাজার ফলে সব বুথে যে রাজ্যের কাছে পর্যাপ্ত পরিমান পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়া যাবে না তা পরিষ্কার আর এই নিয়েই বিরোধীরা আবার দ্বারস্থ হয়েছে হাইকোর্টের। অন্যদিকে এই ইস্যুতে রাজ্যসরকারকে নানা ভাবে কটাক্ষ করতেও ছাড়ছে না রাজ্য বিজেপির শীর্ষনেতারা। রাজনৈতিক সূত্রের খবরে জানা গেছে, ভোট নিরাপত্তার জন্য প্রতিবেশি রাজ্য থেকে পুলিশ নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিলেও কেন্দ্রীয় বাহিনীর সাহায্য নিতে চান না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।অবশ্য শুধু প্রতিবেশী রাজ্য থেই নয় ,কারারক্ষী থেকে শুরু করে বনকর্মী,রায় বাদ যাচ্ছেন না। আর এই সব নিয়েই বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে রাজ্য সরকারকে। কারণ প্রতিবেশি সব রাজ্যেই প্রায় পদ্ম ফুল ফুটে আছে। বিজেপির সাধারণ সম্পাদক প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ” যদি ঝাড়খণ্ড থেকে পুলিশ নেন, মুখ্যমন্ত্রী বলবেন ঝাড়ঝণ্ডের পুলিশ বিজেপির। আবার যদি অসম বা ত্রিপুরা থেকে পুলিশ নেন, তখনও সেই একই কথাই বলবেন তিনি। তার কারণ, বাংলার সব প্রতিবেশী রাজ্যই এখন বিজেপির দখলে। একমাত্র ওড়িশা ছাড়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়র বন্ধু-রাজ্য নেই। তাহলে কী করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়?”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

পঞ্চায়েত নির্বাচনের বাহিনী বিতর্কে এখন এই কটাক্ষই হাতিয়ার করছে রাজ্য বিজেপি। বিজেপি নেতার বক্তব্য হল রাজ্য সরকার প্রতি বুথে একজন করে পুলিশি নিরাপত্তা দিতে অক্ষম তবুও কেন এক দফায় ভোট করতে এতো ইচ্ছুক? চাপে পড়ে পড়শি রাজ্য থেকে বাহিনী আনার কথা বলছে,কেন্দ্রীয় বাহিনীরর সাহায্য নিতে আপত্তি কোথায়? বিরোধীদের এইসব প্রশ্নচিহ্নের মুখে এখন রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচন।প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় আরো দাবী করেন, রাজ্য পুলিশিব্যবস্থা এবং খতিয়ান সম্পর্কে তাঁদের যেন বিস্তারে জানানো হয়।পাশাপাশি তিনি এদিন কটাক্ষ করে বলেন যে পরিস্থিতি খুবই খারাপ, রাজনৈতিক দলের নেতাদের বডিগার্ডদেরও বোধহয় এবার ভোটের কাজে নিতে হবে। আর তাছাড়া কারারক্ষীদের নিলে কয়েদিদের পাহাড়া দেবে কে?
তিনি জানান যে তাঁরা নির্বাচন বন্ধ করতে চান না কিন্তু চান যে নির্বাচনটা যেন প্রহসন না হয়ে যায়! নির্বাচনে সুরক্ষার যথাযথ বন্দোবস্ত থাকুক। মানুষ যেন নিরাপদে ভোট দিয়ে প্রাণ নিয়ে ঘরে ফিরতে পারে। আর তাই তিনি জানান, মানুষের প্রয়োজনে মানুষের নিরাপত্তার জন্য হাইকোর্টে যেতে তাঁরা তৈরি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!