এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > একই প্রার্থী নিয়ে টানাটানি বামফ্রন্ট ও বিজেপিতে, মুখ টিপে হাসছে তৃণমূল

একই প্রার্থী নিয়ে টানাটানি বামফ্রন্ট ও বিজেপিতে, মুখ টিপে হাসছে তৃণমূল

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজ্যের বিরোধী দলের উদ্দেশ্যে একটি পরিচিত অভিযোগ হলো তৃণমূলের বিরুদ্ধে এক হয়েছে বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেস। এই ঘটনাকে সত্যি প্রমান করলো রাজ্যের দুই বিরোধী দল। জানা গেছে হাওড়ার আমতার এক পঞ্চায়েতে সিপিএম এবং বিজেপি দুই দল থেকেই একজন প্রার্থী একটি আসনে মনোনীত হয়েছেন। এই আশ্চর্যজনক ঘটনাটিকে রাজ্যের শাসকদলের পক্ষ থেকে দুটি আলাদা দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাখ্যা করেছেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এক, বিজেপি আর সিপিএম প্রার্থী পায়নি, তাই একজনকে নিয়ে টানাটানি করেছে। তার ফলে ওই এক প্রার্থী দুই দলের হয়েই মনোনয়ন পত্র পেশ করেছেন।দুই, তৃণমূলের বিরুদ্ধে কোন প্রতীকে লড়াই করলে সুবিধা হবে, তা ঠিক করতে গিয়ে এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন প্রার্থী। আসলে দু-পক্ষ গোপনে তৃণমূলের বিরুদ্ধে এক হয়েছে। দুই দলের যৌথ মনোনীত এই প্রার্থীর নাম  জ্যোৎস্না সেনাপতি। পেশায় আইসিডিএস কর্মী। সিপিএমএর তরফ থেকে তাঁকে প্রথমে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দেয়। তিনি এই প্রস্তাবে রাজী হয়ে সিপিএম মনোনীত প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র পেশ করেন । এরপরে বিজেপিও জ্যোৎস্নাদেবীকে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দেয়। তাতেও রাজি জ্যোৎস্না সেনাপতি। এবং সেই মতন মনোনয়নপত্র ও পেশ করেন। এই ঘটনা পরবর্তীতে প্রকাশ্যে এলে সিপিএম এবং বিজেপি দুই দলই চরম অস্বস্তির মুখে পড়ে যায়। যদিও বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে ভোটের এর কোনও প্রভাব পড়বে না। কিন্তু সিপিএম এর পক্ষ থেকে কার্যতই নির্বিকার অবস্থান গ্রহণ করা হয়েছে। রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস পুরো ব্যাপারটাকেই বিদ্রুপ করে বলেছে প্রার্থী না পেয়েই এই অবস্থা দুই বিরোধী পার্টির। এই বিতর্কিত পরিস্থিতিতে জ্যোৎস্না দেবী আদৌ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবেন কি না সেই বিষয়ে এখন স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে। এই অবস্থায় ঐ কেন্দ্রে তৃণমূল  কংগ্রেস দল একটি সুবিধাজনক জায়গায় চলে যেতে পারে বলে রাজনৈতিক মহলের একাংশ মনে করছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!