এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > তথ্য ফাঁস হয়ে ভোটের আগে চরম অস্বস্তিতে বিজেপি, ফায়দা তুলছে বিরোধীরা

তথ্য ফাঁস হয়ে ভোটের আগে চরম অস্বস্তিতে বিজেপি, ফায়দা তুলছে বিরোধীরা

কর্নাটক বিধানসভা নির্বাচনের আর এক সপ্তাহ ও বাকি নেই। শেশ মুহূর্তের নির্বাচনী প্রচার কার্য ঘিরে ব্যস্ততা তুঙ্গে। এইসময়েই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় অংশ গ্রহণকারী প্রার্থীদের বিষয়ে চাঞ্চল্যকর ক্কিছু তথ্য প্রকাশ্যে এলো। জানা গিয়েছে ২,৬৫৪ জন প্রার্থীর মধ্যে ৬৪৫ জন প্রার্থী অপরাধী। অর্থাৎ কী না পুলিশের খাতায় তাঁদের নাম ও অপরাধের বিবরণ রয়েছে। উল্লেখ্যযোগ্য ভাবেই অপরাধী প্রার্থী তালিকার শীর্ষে রয়েছে গেরুয়া শিবির। ২২৪ জন বিজেপি প্রার্থীর নাম অপরাধী হিসেবে পুলিশের খাতায় নথিভুক্ত রয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে কংগ্রেস।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

ঐ দলের ২২০ জন প্রার্থীর নাম রয়েছে পুলিশের খাতায়। তৃতীয় স্থানে রয়েছে দেব গৌড়ার দল জনতা দল সেকুলার। সেখানে অপরাধী প্রার্থীর সংখ্যা ১৯৯ জন। উল্লেখ্য ২০১৩ বিধানসভা নির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে ৩৩৪ জন প্রার্থীর নাম ছিল পুলিসের খাতায়। সেখানে ২০১৮-র বিধানসভা নির্বাচনে সেই সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৩৯১ জন। এডিআর-এর রিপোর্টের ভিত্তিতে বললে দুষ্কৃতি নির্ভর হয়েই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে চাইছে বিজেপি।শুধু অপরাধের তালিকায় শীর্ষে নয়। সম্পত্তির নিরিখেও বিজেপি প্রার্থীরা কয়েকগুণ এগিয়ে। এডিআর রিপোর্ট অনুয়ারী বিজেপির ২২৩ জন প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমান ১ কোটি টাকারও বেশি। সেই তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে রাজ্যের শাসক দল কংগ্রেস। দলের ২২০ জন প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমাণ ১ কোটি টাকার বেশি। জনতা দল সেকুলারের ১৯৯ জন প্রার্থী কোটিপতি। দলের ২২০ জন প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমাণ ১ কোটি টাকার বেশি। জনতা দল সেকুলারের ১৯৯ জন প্রার্থী কোটিপতি।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!