এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বীরভূম বিরোধীশূন্য করে দেখালো দিদির কেষ্ট,৪২ এর মধ্যে ৪২ তৃণমূলের

বীরভূম বিরোধীশূন্য করে দেখালো দিদির কেষ্ট,৪২ এর মধ্যে ৪২ তৃণমূলের



বীরভূম বিরোধীশূন্য করে দেখালো দিদির কেষ্ট,৪২ এর মধ্যে ৪২ তৃণমূলের। ৪২ টির মধ্যে আগেই ৪১ টি তে বিরোধীরা প্রার্থী দিতে পারেন নি বলে ৪১ টি আগেই দখল করেছিল তৃণমূল। এদিন সবেধন নীলমণি বিজেপি-র একমাত্র প্রার্থী চিত্রলেখা রায় নিজের মনোনয়ন প্রত্যাহার করার আবেদন জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ফলে বীরভূম জেলা পরিষদকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিরোধীশূন্য করে ফেললো দিদির কাছের ভাই কেষ্ট। তবে বিজেপির তরফ থেকে এই নিয়ে অভিযোগ করা হয়েছে যে তাদের প্রার্থীকে ভয় দেখিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাহার করানো হয়েছে। কেননা তাদের স্বপক্ষে যুক্তিও তারা দেখিয়েছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

তাদের দাবি যে অনুব্রত মণ্ডল গতকালকেই এক জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে বলেছেন যে জেলা পরিষদের একমাত্র বিজেপি প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেবেন।আমাদের প্রার্থী কে কি করবে তা তিনি কি করে জানলেন ?এদিন অনুব্রত বাবু বলেছিলেন যে,”জেলা পরিষদে যে একমাত্র বিরোধী প্রার্থী রয়েছেন, তিনি খুব মানসিক কষ্ট পাচ্ছেন। তিনি বুঝতে পারছেন, তিনি উন্নয়নের বিপক্ষে গিয়ে ভুল করেছেন। কষ্ট যখন পাচ্ছেন, তখন মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে পারেন বলে মনে হচ্ছে।” তবে যদিও কলকাতা হাইকোর্ট পঞ্চায়েতের সমস্ত পক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশ দিয়েছে তাই ১৬ এপ্রিল -এর আগে পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না। তাই আপাতত বাতিল নয় মনোনয়ন।অবশ্য চিত্রলেখাদেবী এই নিয়ে এখনো কিছু জানাননি। এই নিয়ে বিজেপি-র বীরভূম জেলা পর্যবেক্ষক সায়স্তন বসু বললেন, ”প্রত্যাহার করিয়ে আর কোনও লাভ নেই।কারণ, হাইকোর্ট পঞ্চায়েত নির্বাচনের যাবতীয় প্রক্রিয়ার উপরে আগামী ১৬ তারিখ পর্যন্ত স্থগিতাদেশ জারি করেছে।” তাঁর আরও সংযোজন, ”অনুব্রত মণ্ডল আনন্দবাজারকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে বলেছিলেন, বিরোধী প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেবেন, কারণ তাঁরা মানসিক কষ্ট পাচ্ছেন। এ কথা বলে উনি আমাদের উপকারই করেছেন। কারণ, তাঁর এই উস্কানিমূলক মন্তব্য হাইকোর্ট থেকে স্থগিতাদেশ আদায় করতে আমাদের সাহায্য করেছে।”

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!