এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > ধরা পরার আগের মুহূর্ত পর্যন্ত বাঘের মত লড়াই অভিনন্দনের – পুরোটা জানলে চমকে যাবেন

ধরা পরার আগের মুহূর্ত পর্যন্ত বাঘের মত লড়াই অভিনন্দনের – পুরোটা জানলে চমকে যাবেন

ভারতীয় উইং কমান্ডার অভিনন্দন ভর্তমানের বীরত্বের পরিচয় পেয়ে গৌরবান্বিত গোটা দেশ। তাঁর প্রশংসায় পঞ্চমুখ রাজনৈতিক হেভিওয়েট ব্যক্তিত্ব সহ দেশের আমজনতা। বিমান পাকিস্তানের মাটিতে ভেঙে পড়ার শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ময়দানে টিকে থেকে একা লড়াই করে গিয়েছেন তিনি।

অপরিসীম সাহসের পরিচয় দিয়ে একাই পাকিস্তানের উন্মত্ত জনতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন৷ খোদ পাক সংবাদপত্র ‘ডন’ একথা স্বীকার করে নিয়েছে। ওই সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী,প্রতিকূল পরিস্থিতিতে একটুও বিচলিত না হয়ে স্নায়ুকে নিয়ন্ত্রণ করে পাকিস্তানের উন্মত্ত জনতাকে ঠেকাতে শূন্য কয়েক রাউন্ড গুলিও চালান অভিনন্দন।

একদিকে রক্তে ভেসে যাচ্ছে গোটা শরীর,অন্যদিকে মুখে তাঁর দেশাত্মবোধক স্লোগান। এই দেখেই ক্ষেপে উঠেছিল পাকিস্তানের যুবকরা। একজনতো অভিনন্দনের পা লক্ষ্য করে গুলিও চালায়। তবুও দমাতে পারেনি ভারতীয় এই বীর সেনাকে। রাজ্জাক নামক এক প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান উল্লেখ করে ‘ডন’ জানিয়েছেন,গুরুতর জখম অবস্থায় প্রায় আধ কিলোমিটার দৌড়ে উন্মত্ত জনতার হাত থেকে বাঁচার চেষ্টা করেছিলেন অভিনন্দন।

এরপর দৌড়ে গিয়ে বাঁচার জন্যে একটি জলাশয়ে ঝাঁপ দেন। পরিস্থিতির প্রতিকূলতা বাড়তে দেখে সঙ্গে থাকা গুরুত্বপূর্ণ নথি এবং মানচিত্রের কিছুটা অংশ খেয়ে ফেলেন তিনি এবং বাকিটা জলের মধ্যেই নষ্ট হয়ে যায়। এরপর পাকসেনারা অভিনন্দনকে বন্দি করে। তবে পাক সেনাদের হেফাজতে আসার আগ মুহূর্তে পর্যন্ত স্থিরপ্রতিজ্ঞ হয়ে বাঘের মতো একা লড়াই করেছিলেন অভিনন্দন ভর্তমান।

এসবের মধ্যে একটি নতুন তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে। পাকিস্তানের মাটিতে ভারতীয় বিমান ভেঙে পড়ার আগে একটি পাক যুদ্ধ বিমানের পিছু নিয়েছিল ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন ভর্তমান। সূত্রের খবর,বুধবার সকাল ৯টা ৪৫ মিনিট নাগাদ নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে মাত্র ১০ কিলোমিটার দূরে পাকিস্তানের ২৪টি যুদ্ধবিমানের একটি স্কোয়াড্রনের অস্তিত্ব ভারতীয় রেডারে ধরা পড়ে।

পাক যুদ্ধবিমানগুলি সীমান্ত পেরিয়ে ভারতের আকাশসীমায় ঢোকার চেষ্টা করতেই ভারতীয় বায়ুসেনার ৮টি যুদ্ধবিমান তাদের ধাওয়া করতে এগিয়ে যায়। চারটি সুখোই-৩০, দু’টি আপগ্রেডেড মিরাজ-২০০০ এবং দু’টি মিগ-২১ বাইসন প্রজাতির যুদ্ধবিমান নিয়ে পাক বিমানবাহিনীর পিছু নেয় ভারতীয় বায়ুসেনারা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এই পরিস্থিতিতে উইং কমান্ডার অভিনন্দন ভর্তমান পাকিস্তানের একটি এফ-১৬ যুদ্ধবিমানকে লক্ষ্য করে এগোতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণরেখা টপকে পাক আকাশসীমার মধ্যে ঢুকে পড়েন। পাক যুদ্ধবিমানে যুদ্ধবিমানটিকে লক্ষ্য করে আর-৭৩ এয়ার টু মিসাইলও ছোঁড়েন তিনি। এর পাল্টা দিতে পাকিস্তানের তরফ থেকে অভিনন্দনের বিমানকে লক্ষ্য করে দুটি মিসাইলও ছোঁড়া হয়। একটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলেও অন্যটি গিয়ে অভিনন্দনের বিমানের ডানায় আঘাত করে। পরিস্থিতির প্রতিকূলতা দেখে বাঁচার তাগিদে বাধ্য হয় ককপিট ছেড়ে প্যারাশুটে করে ল্যান্ড করতে হয় অভিনন্দনকে।

এর পাশাপাশি আরো জানা গিয়েছে,ভারতীয় সেনাদের প্রতিরোধের মুখে পড়ে ফিরে যাওয়ার আগে পাক যুদ্ধবিমানগুলি সীমান্ত বরাবর ভারতীয় সেনাছাউনি লক্ষ্য করে লেজার নিয়ন্ত্রিত বেশ কয়েকটি বোমাও নিক্ষেপ করে। তবে সৌভাগ্যক্রমে,সেগুলির সবকটাই লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। তবে পুলওয়ামা হামলার প্রেক্ষিতে ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন ভর্তমানের বীরগাথা দেশবাসীর মনে সদা অম্লান থাকবে,তা বলাবাহুল্য।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!