এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসন দেখুন, বিজেপিকে তৃণমূলের ছাত্র-যুবরাই মোকাবিলা করতে পারবে: অভিষেক

মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসন দেখুন, বিজেপিকে তৃণমূলের ছাত্র-যুবরাই মোকাবিলা করতে পারবে: অভিষেক

 

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় 18 আসন পাওয়ার পরই রাজ্যে গেরুয়া ঝড় দেখা দিতে শুরু করে। 42 এ 42 এর স্লোগান তুলেও তৃণমূলকে আটকে যেতে হয় 22 টি আসন দখল করেই। আর এরপর থেকেই নিজেদের সংগঠনকে চাঙ্গা করতে দলীয় স্তরে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করে তৃণমূল কংগ্রেস।

পাশাপাশি বিজেপি বিরোধিতায় সুর চড়াতেও শুরু করে তারা। তবে লোকসভায় যেভাবে বিজেপি ভালো ফল করেছে, তাতে আগামী 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনে কী হবে, তা নিয়ে নানা মহলে নানা জল্পনা ছড়িয়েছিল। অনেকেই ভেবেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলকে বিজেপি বিরোধীতার সুরে বাধতে চাইলেও তা কি সফলতা পাবে! যখন এই প্রশ্ন নানা মহলে ঘোরাফেরা করছে, ঠিক তখনই জয়েন এন্ট্রান্স গুজরাটি ভাষার প্রয়োগ নিয়ে বিরোধিতা করে বিজেপিকে কড়া ভাষায় জবাব দিলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, সোমবার বাংলা ভাষায় জয়েন এন্ট্রান্সের দাবিতে কলকাতার মেয়ো রোডে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে যুব তৃনমূলের পক্ষ থেকে একটি প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়। যেখানে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, তাপস রায়, সাধন পান্ডে, ফিরহাদ হাকিম, বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়, তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য সহ অন্যান্যরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর সেখানেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “সংসদে বিজেপি 302 হতে পারে। কিন্তু বাংলার প্রাপ্য মর্যাদা রক্ষায় দিল্লিতে তৃণমূলের 22 জনই যথেষ্ট।” তিনি বলেন, “গত 7 নভেম্বর রাজ্যের শিক্ষা দপ্তর জয়েন এন্ট্রান্সের এই ঘটনা নিয়ে চিঠি দিয়েছিল। কিন্তু তাতে কোনো সাড়া দেওয়া হয়নি। অথচ হিন্দি, গুজরাটি ভাষায় প্রশ্নপত্র করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দার্জিলিঙে যখন কেন্দ্রীয় বাহিনী তুলে নিয়েছিল কেন্দ্র, তখন তো তাদের রাজ্যের অনুমতির কথা মনে পড়েনি! তাহলে হঠাৎ একটি বিশেষ ভাষাকে অন্তর্ভুক্ত করা হল কেন! অথচ অন্যান্য আঞ্চলিক ভাষাকে বাদ দেওয়া হল। হিন্দির পর দেশের সবথেকে বেশি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলে। আজকে সেই ভাষাকে গুরুত্ব দেওয়া হল না।”

এদিকে এদিনর এই মঞ্চ থেকে বাংলার মনীষীদের বিজেপি অসম্মান করেছে বলেও সরব হন ডায়মন্ডহারবারের তৃণমূল সাংসদ। এনআরসি থেকে দেশের অর্থনীতি, প্রায় প্রতিটি ইস্যুতেই কেন্দ্রকে কাঠগড়ায় তুলে চরম বিজেপির বিরোধিতার সুর চওড়া করেন অভিষেকবাবু‌।আর এরপরই দলীয় নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলতে গিয়ে এক ঐতিহাসিক মন্তব্য করে বসেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের প্রশাসন দেখুন। বিজেপিকে রাজনৈতিক ময়দানে তৃণমূল ছাত্র-যুবরাই মোকাবিলা করতে পারবে।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজ্যে বিজেপির প্রবল উত্থান ঘটেছে বলে নানা মহলের তরফে দাবি করা হচ্ছে। আর এই পরিস্থিতিতে সমালোচকদের সেই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে তৃণমূলের ছাত্র-যুবরাই বিজেপিতে মোকাবিলা করতে পারবে বলে জানিয়ে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। যা একদিকে বিজেপিকে রাজনৈতিকভাবে ছোটো করে যেমন দেখানোর চেষ্টা করলেন তিনি, ঠিক তেমনই নিজেদের রাজনৈতিক প্রতিপত্তি অনেকটাই বেশি বলে দাবি করলেন তিনি বলে মত বিশ্লেষকদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!