এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > নিজের জালেই জড়িয়ে পড়লেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সৌজন্যে অর্জুন সিং

নিজের জালেই জড়িয়ে পড়লেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সৌজন্যে অর্জুন সিং

তৃণমূলের একদা বিশ্বস্ত সৈনিক অর্জুন সিং এদিন তৃণমূলের দুই নম্বর তথা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিজের জালেই জড়িয়ে দিলেন। এবার কী তাহলে সন্ন্যাস নেবেন যুব তৃণমূলের সভাপতি তথা ডায়মন্ড হারবার কেন্দ্রের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়? প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন বারাকপুরের প্রথম বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

শুরুটা হয়েছিল একটু অন্যরকম। দীর্ঘদিনের ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং এবারে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়াতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নেত্রী চাননি, দীনেশ ত্রিবেদীর উপর আস্থা রেখে প্রাক্তন রেলমন্ত্রীকেই টিকিট দিয়েছিলেন। ক্ষোভ উগরে দেন অর্জুন সিং। আর তার পর সেই ক্ষোভ মেটাতে মাঠে নেমেছিলেন খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দীনেশ ত্রিবেদী ও অর্জুন সিং কে একসাথে নিয়ে বৈঠক করেন, সেই বৈঠকে অর্জুন সিং দীনেশ ত্রিবেদীকে সমর্থনের কথা জানালেও তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি শিবিরে নাম লেখান।

যদিও এই সময় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অর্জুন সিংকে চ্যালেঞ্জ ছুড়েছিলেন যে ক্ষমতা থাকলে বিজেপির টিকিটে অর্জুন সিং দাঁড়ান বারাকপুর কেন্দ্র থেকে। সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে অর্জুন সিং কে বিজেপি বারাকপুর থেকে টিকিট দেয়। ঘাস ফুল শিবিরের দুর্দিনের এই সৈনিকের দলবদল ঘিরে রাজ্য রাজনীতি তোলপাড় হয়ে যায়। দলের অন্দরেও তার আঁচ লাগলেও অর্জুন সিংকে ‘ভাটপাড়ার গদ্দার’ বলে তা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল তৃণমূলে তরফ থেকে।

এর পরেও কটাক্ষ করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেছিলেন যে, “বারাকপুর কেন্দ্র থেকে দীনেশ ত্রিবেদী কমপক্ষে দুই লক্ষ ভোটে জিতবেন। এক লক্ষ ৯৯ হাজার ভোটেও হারবে না। হারলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব ”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

আর এদিন ভোটের ফলাফল বের হলে দেখা যায় জিতে গেছেন অর্জুন সিং। অন্যদিকে ভাটপাড়া কেন্দ্রে উপনির্বাচনেও তাঁর পুত্র পবন সিং তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্রকে হারিয়ে দিয়েছেন। আর এরপরেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে কঠাক্ষ করে যুবরাজের চ্যালেঞ্জকেই মনে করিয়ে দিয়ে অর্জুন সিং প্রশ্ন তোলেন যে, “অভিষেক ব্যানার্জী বাচ্চা ছেলে। উনি বলেছিলেন, আমি আড়াই লক্ষ ভোটে না হারলে উনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন। আমার ওনার কাছে প্রশ্ন, উনি ভবিষ্যতে রাজনীতি করবেন না সন্ন্যাস নেবেন?”

আর এই নিয়েই এখন রাজ্যে জোর শোরগোল শুরু হয়েছে যদিও এই নিয়ে এখনো মুখ খোলেন নি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি এখন এই প্রশ্নের কি উত্তর দেবেন তা দেখার অপেক্ষায় গোটা রাজ্যবাসী।

Top
error: Content is protected !!