এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বেতন কমিশনের রিপোর্ট নিয়ে আশার খবর শোনালেন অভিরূপ, পুজোর আগেই সুখবর পেতে পারেন রাজ্য সরকারি কর্মীরা

বেতন কমিশনের রিপোর্ট নিয়ে আশার খবর শোনালেন অভিরূপ, পুজোর আগেই সুখবর পেতে পারেন রাজ্য সরকারি কর্মীরা

কিছুদিন আগেই রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ষষ্ঠ বেতন কমিশনের চেয়ারম্যান অভিরূপ সরকারকে নবান্নে ডেকে পাঠানোয় তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছিল। আর এরপরই সেই বেতন কমিশনের রিপোর্ট জমা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই এই কাজ প্রায় শেষের দিকে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী জুলাই কিংবা আগস্ট মাসের মধ্যেই এই রিপোর্ট জমা পড়তে পারে। আর এই বেতন কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়ার পরেই অর্থ দপ্তরের পক্ষ থেকে ইমপ্লিমেন্টেশন কমিটি তৈরি করা হবে বলে খবর।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই কমিটি যদি এক মাসের মধ্যে তাদের রোপা প্রকাশ করেন, তাহলে চলতি বছরে পুজোর মধ্যেই নতুন বেতন কমিশন চালু হয়ে যাবে। কিন্তু এই ষষ্ঠ বেতন কমিশনের প্রতিনিধিরা ঠিক কতটা বেতন বৃদ্ধির সুপারিশ করবেন!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

জানা গেছে, অর্থনীতিবিদ অভিরূপ সরকারের নেতৃত্বাধীন এই কমিশন 14.3 শতাংশ বেতন বৃদ্ধির সুপারিশ করতে পারে। পাশাপাশি সরকার পোষিত 54 টি সংস্থার কর্মীর বেতন কাঠামো এবং 69 টি রাজ্য সরকারের অধীনস্থ সংস্থার কর্মীদের নতুন বেতনক্রমের ব্যাপারেও কমিশনের পক্ষ থেকে রিপোর্ট দেওয়া হবে।

এদিন এই প্রসঙ্গে কমিশনের চেয়ারম্যান অভিরূপ সরকার বলেন, “আমার রিপোর্ট তৈরি। দ্রুত তা জমা পড়বে। তবে ঠিক কবে তা হবে, তা বলতে পারছি না।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, এবারের লোকসভা নির্বাচনে পোস্টাল ব্যালটে সরকারি কর্মচারীদের সমর্থন বেশিরভাগটাই বিজেপির দিকে গেছে। আর যেখানে ভরাডুবি হয়েছে তৃণমূলের। আর তাই সরকারি কর্মীরা তাদের ওপর ক্ষিপ্ত এই কথা ভেবেই এখন সেই কর্মীদের মন গলাতে উদ্যোগী হয়েছে সরকার বলে মনে করছে একাংশ।

Top
error: Content is protected !!