এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > মুখ্যমন্ত্রীর বিধানসভার ভাষণকে ‘কলতলার ঝগড়ার’ সঙ্গেই তুলনা করা যায়: আব্দুল মান্নান

মুখ্যমন্ত্রীর বিধানসভার ভাষণকে ‘কলতলার ঝগড়ার’ সঙ্গেই তুলনা করা যায়: আব্দুল মান্নান

গত শুক্রবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় নিজের বাজেট বক্তৃতার জবাবি ভাষণে তীব্র ভাষায় আক্রমন করেন কংগ্রেসকে। তিনি বলেন, এ রাজ্যের কংগ্রেস নেতারা চুনোপঁটি, দিল্লিতে বা সংসদে আমাদের ছাড়া কংগ্রেসের চলে না। রাজ্যে তাহলে কীসের এত বিরোধিতা? এ রাজ্যে সিপিএম ও কংগ্রেস এক, মেড ফর ইচ আদার। মানুষ এদের প্রত্যাখ্যান করেছে, তবু লজ্জা নেই! রাজ্যপালের ভাষণেরও সমালোচনা করছেন বিরোধীরা। কেউ কেউ এমন ব্যবহার করছেন, যে মহিলারা রয়েছেন বিধানসভায় তাও তাঁরা মনে রাখছেন না। এমনই শালীনতা ছাড়িয়ে যাচ্ছেন যে মহিলাদের সাবধানে থাকতে হবে এবার। বিধানসভাতেও মহিলারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন, এসব বরদাস্ত করব না।

আর এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নিজের প্রতিক্রিয়ায় বিধানসভার বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান বলেন, আমরা গ্রামের ছেলে, পুকুরঘাটে বা কলতলায় মহিলাদের ঝগড়া দেখেছি। মুখ্যমন্ত্রীর বাজেট-জবাবি ভাষণকে কলতলার ঝগড়ার সঙ্গেই তুলনা করা যায়। একজন মুখ্যমন্ত্রী বলে কথা, তাঁর কি ওই ভাষায়, ওইরকম ঢঙে কথা বলা মানায়? তাঁকে আরও সংযত ভাষায় বক্তব্য রাখতে হবে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী এমনভাবেই তাঁর ভাষণ ব্যক্ত করেছেন, যে সমালোচনা করা ছাড়া উপায় নেই। আমার নিজের এইসব কথার সমালোচনা করতেই বাধে, কোনওদিনও এমন অমার্জিত ভাষায় কথা বলিনি, আর ভবিষ্যতেও বলব না। আমার সে শিক্ষা নেই। আমি শুধু মনে করিয়ে দিতে চাই, মুখ্যমন্ত্রী তো বলেন, পশ্চিমবঙ্গ সংস্কৃতিসম্পন্ন একটা রাজ্য। সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য কেন মার্জিত হবে না? মুখ্যমন্ত্রী জবাবি ভাষণের নামে যেন ঝগড়া করতেই বিধানসভায় এসেছিলেন। পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিটা আর রাজনৈতিক কথাবার্তার মধ্যে আবর্তিত হচ্ছে না। বিধানসভাকেও পাড়ার ঝগড়ার জায়গায় নামিয়ে আনা হচ্ছে, এটা আদৌ সমীচিন নয়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!