এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আবারও দলবদল! পদ্ম শিবিরে চিন্তার ভাঁজ

আবারও দলবদল! পদ্ম শিবিরে চিন্তার ভাঁজ

2019 এর লোকসভা নির্বাচনের পরে বিজেপি দলে যোগ দেওয়ার প্রবণতা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছিল। অন্যান্য দল ও তৃণমূল থেকে বহুল পরিমাণে সদস্যরা এসে বিজেপিতে যোগদান করেন। ফলে রাজ্যের বহু পুরসভা, পঞ্চায়েতের রং বদলে যায়। তবে বর্তমানে বেশ কিছুদিন ধরে বিজেপি থেকে শাসক দলে ফিরতে শুরু করেছে দলবদলকারী নেতানেত্রীরা। এর ফলে বিজেপি শিবিরে চিন্তার ভাঁজ। ফলে একাধিক পঞ্চায়েত পুরসভা বিজেপির হাত থেকে বেরিয়ে যায়। এদিনও সেই একই নীতি মেনে আরামবাগে প্রায় আড়াইশো কর্মী-সমর্থক যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে।

এদিন আরামবাগে উপ নির্বাচনের প্রাক্কালে নির্বাচনী প্রচারে জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল। বিজেপির পক্ষ থেকে শুক্রবার বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের আরামবাগে সভা করার কথা ছিল। তার আগেই আরামবাগ বিজেপিতে বড়সড় ফাটল ধরিয়ে প্রায় আড়াইশো কর্মী‌‌ সমর্থক যোগ দিলেন তৃণমূলে।

আরামবাগে নির্বাচনী সভায় দিলীপ ঘোষ, ভারতী ঘোষের বক্তব্য রাখার আগেই বিজেপি থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের দলবদল ঘটল। রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, এই দল বদল এর ফলে বিজেপি শিবিরে বড় ধাক্কা লাগল। এদিন বিজেপি থেকে প্রায় 50 জন সক্রিয় কর্মী এবং 200র বেশি সমর্থক দলবদল করেন।

এদিন আরামবাগে দলবদলকারী কর্মী সমর্থকদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূলের ব্লক সভাপতি স্বপন নন্দী। আরামবাগের দলীয় অফিসে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ঘরছাড়াদের ঘরে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। যদিও স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব এই ঘটনাকে কোন গুরুত্ব দিচ্ছেনা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি স্বপন নন্দী এই দলবদলে ঘটনাকে ব্যাখ্যা করেছেন নিজের মতন করে। তিনি জানান, লোকসভার আগে দলবদলকারীরা তৃণমূল কংগ্রেসেরই ছিলেন। কিন্তু লোকসভা ভোটের পরেই তাঁরা বিজেপিতে যোগ দেন। আবারও ভুল বুঝতে পেরে তাঁরা পুরনো দলে ফিরে এসেছেন।

অন্যদিকে, বিজেপির আরামবাগের সাংগঠনিক জেলা সভাপতি বিমান ঘোষ জানিয়েছেন, তাঁরা আরামবাগে শহীদ স্মরণে সভা করেছেন। সেখানে বিপুল জনসমাগম এর আয়োজন করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। এমনকি তিনি জানিয়েছেন, সভাতে জনসমাগম ঘটানোর জন্য 400 বাস, 300 লরি ভর্তি লোক আনা হবে। তাই দলবদলের বিষয়টিকে তারা গুরুত্ব দিয়ে ভাবতেই নারাজ।

দলবদল এর বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, এভাবে যদি বিজেপি থেকে তৃণমূলে দিনের-পর-দিন দলবদল ঘটতে থাকে, তাহলে অচিরেই বিজেপির সংগঠন ভেঙ্গে পড়তে পারে। 2021 এর যে নির্বাচনকে বিজেপি পাখির চোখ করেছে, সেই নির্বাচনেও তাঁদের জন্য কোন অঘটন ঘটে যাওয়া অসম্ভব নয়। সুতরাং, অবিলম্বে বিজেপির সংগঠন খতিয়ে দেখা উচিত।

অন্যদিকে, রাজনৈতিক মহলের দাবি, বিজেপি থেকে তৃণমূলে সদস্যরা ফিরে আসায় তৃণমূলের শক্তি বেশ কিছুটা ফেরত এল বলে মনে করা হচ্ছে। তবে বেশ কিছুদিন ধরেই দলবদল এর ব্যাপার নিয়ে বিজেপি শিবিরে চিন্তার ভাঁজ। আপাতত সমগ্র পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!