এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আবার রাজ্যপাল-রাজ্য সরকার তীব্র সংঘাত! ধনকরকে ‘বিজেপি নেতা’ বলে তীব্র কটাক্ষ পার্থর

আবার রাজ্যপাল-রাজ্য সরকার তীব্র সংঘাত! ধনকরকে ‘বিজেপি নেতা’ বলে তীব্র কটাক্ষ পার্থর

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে রাজ্যপালের দ্বন্দ্ব বেশ কিছুদিন ধরেই রাজনৈতিক চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছিল। তবে দীপাবলীর সন্ধ্যার রেশ ধরে রাজনৈতিক মহল ভেবেছিল, এবার বুঝি সেই দ্বন্দ্বের অবসান হলো। কিন্তু দ্বন্দ অবসানের চিন্তাকে দূরে সরিয়ে রেখে আবারও রাজ্য সরকার এবং রাজ্যপালের বিরোধ সামনে এলো। এবার রাজ্যে আড়িপাতা কাণ্ড নিয়ে রাজ্যপালের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যপালকে অভিযোগের আঙুল তুলে তাকে বিজেপি নেতা বলে কটাক্ষ করলেন।

সম্প্রতি রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। ফোনে আড়িপাতা কাণ্ড নিয়ে। এদিন মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেন, তাঁর ফোনেও আড়িপাতা হয়েছিল। এ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আগেও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছিলেন। লোকসভা নির্বাচনের সময় এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী তীব্র নিন্দা করেন।

তবে এ নিয়ে তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরকে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করেন। রাজ্যপালকে পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন বলেন, রাজ্যপাল রাজনৈতিক নেতা হওয়ার চেষ্টায় রাজনৈতিক দলের মুখপাত্রের মতনই কথা বলছেন আজকাল।

শুধু তাই নয়, রাজ্যপালকে আক্রমন করে এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন রাজ্যপাল সব বিষয়ে এগিয়ে এসে অভিযোগ করছেন। বাংলার গোপনীয়তা লঙ্ঘন হচ্ছে বলে সম্প্রতি রাজ্যপাল যে অভিযোগ করেছেন তার বিরুদ্ধে জবাবদিহি চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন অভিযোগ করেন, রাজ্যপাল ও দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের মধ্যে বিশেষ কোনো ফারাক পাওয়া যাচ্ছেনা বর্তমানে। রাজনৈতিক নেতাদের সাথে মতাদর্শগত ফারাক থাকতেই পারে, কিন্তু রাজ্যপাল যে ধরনের কথা বলছেন তাতে তাঁকে কোনো নির্দিষ্ট দলের রাজনৈতিক কর্মী বলেই মনে করছেন তিনি। রাজ্যের বিরোধিতা করাই মুখ্য উদ্দেশ্য যেন, এরকম ভাবেই রাজ্যপাল বক্তব্য রাখছেন আজকাল।

সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর অভিযোগ করেন, বাংলায় গোপনীয়তা লঙ্ঘন হচ্ছে, ফোন ট্যাপ করা হচ্ছে। আর রাজ্যপালের এই অভিযোগের ভিত্তিতেই রাজ্য সরকার ও রাজ্যপাল এর মধ্যে সংঘাত আবার দানা বাঁধে। এ নিয়ে আবারও রাজ্য রাজনীতি উত্তাল।

রাজ্যপালকে এহেন কথা বলার অভিযোগে এবার শাসকদলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিরোধী দল। বিরোধী শিবিরের বক্তব্য হল, শাসক শিবির ইচ্ছাকৃতভাবেই রাজ্যপালকে যখন-তখন অপমান করেন। রাজ্যপালের সাথে শাসক সরকারের বিরোধ লাগে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র ঘেরাওয়ের ঘটনা নিয়ে, তারপর বারংবার বিভিন্ন বিষয়ে বিরোধিতা ছিল। তখন থেকেই সেই বিরোধ আজও কমেনি।

বিরোধিতা বজায় রেখেই এদিন আবারও শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজ্যপালের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তোলেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। আপাতত ফোন ট্যাপ করা নিয়ে রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি কোন দিকে মোড় নেয়, সে দিকে নজর রাখছে রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!