এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ড সহ প্রায় সব কাণ্ডের তদন্ত কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়লো নবান্নে

সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ড সহ প্রায় সব কাণ্ডের তদন্ত কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়লো নবান্নে

“বাম আমলে হত্যা, রক্তক্ষয়ী আন্দোলন, মায়ের কোল থেকে ছেলে চলে যাওয়া- তৃনমূল সরকার ক্ষমতায় এলেই এই সব কিছুরই সুবিচার পাবে বাংলার মানুষ”- 2011 র নির্বাচনের আগে এমনটাই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর রাজ্যে পালাবদল ঘটেছে। বাম সরকারকে বিদায় জানিয়ে ক্ষমতায় বসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃনমূল সরকার। আর ক্ষমতায় বসেই বেশ কয়েকটি বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠন করেন তিনি। এবার সেই সমস্ত তদন্ত কমিশনের রিপোর্ট ধীরে ধীরে জমা পড়তে শুরু করেছে সরকারের কাছে।

সূত্রের খবর, বসিরহাট উত্তর বিধানসভার বিধায়ক মোস্তাফা বিন কাশেমের মৃত্যুর পরে একটি কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়ে। আর এরপরই জমা পড়ে বিচারপতি সুশান্ত চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন 21 জুলাই কমিশনের রিপোর্ট। যেখানে রাজ্যের চার আইপিএস অফিসারের বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে। আর এরপর ধীরে ধীরে বিডিও কল্লোল শূরের মৃত্যু রহস্যের রিপোর্ট, বিচারপতি অরুনাভ বসুর সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ড, প্রবীর সামন্তর নেতৃত্বাধীন বিদ্যুতের হুকিং নিয়ে মগরাহাটে গন্ডগোলের ঘটনার রিপোর্ট জমা পড়ে সরকারের কাছে।

এছাড়াও বিচারপতি ডি পি সেনগুপ্তর কৃশীপুর গনহত্যা, বিচারপতি এন এন ভট্টাচার্যের গড়বেতায় হুলদিবসে আদিবাসী হত্যাকান্ডের রিপোর্ট নবান্নে জমা পড়েছে। কিন্তু এত পর্যন্তই! সরকারের টেবিলে বিভিন্ন কমিশনের রিপোর্টগুলো জমা পড়লেও বসির হাটের বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনা ছাড়া আর কোনো রিপোর্টই বিধানসভায় জমা পড়েনি অভিযোগ এমনটাই।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

সূত্রের খবর, 2015 র মে মাসে বিচারপতি অজয় নাথের নেতৃত্বে একটি কমিশন তেহট্টে জগধাত্রী পুজোকে কেন্দ্র করে অশোক সেন নামে এক ব্যাক্তির মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত শুরু করলে তা এখনও সম্পন্নই হয়নি। জানা গেছে এই কমিশনের মেয়াদ আগামী 12 সেপ্টেম্বর শেষ হলেও আগামী ডিসেম্বরে রিপোর্ট পেশের কথা জানিয়েছেন বিচারপতি অজয় নাথ। অপরদিকে সল্টলেকের ইন্দিরা ভবনে বিচারপতি রনেন্দ্রনারায়ন নেতৃত্বে রাজারহাটের জমি দখল নিয়ে একটি কমিশন আর অমিতাভ লালার বিজন সেতুতে  আনন্দমার্গী হত্যা কমিশনের কাজ এখনও চলছে। সব মিলিয়ে পাঁচটি বাদে সব কমিশনের কাজ প্রায় সমাপ্তির মুখে। এখন এই কমিশনগুলির দেওয়া রিপোর্টের ভিত্তিতে দোষীদের বিরুদ্ধে সরকার কি পদক্ষেপ নেয় সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!