এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ২১ শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে কি বললেন তৃণমূল নেত্রী – দেখে নিন এক নজরে

২১ শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে কি বললেন তৃণমূল নেত্রী – দেখে নিন এক নজরে

মমতার হুঁশিয়ারি কংগ্রেসের আর সিপিএমকে – এখানে বিজেপিকে মদত দেবেন, আর দিল্লিতে আমাদের সাহায্য চাইবেন, সেটা হবে না। এবার ২১-র ২৫-এ পা। এই ২১ জুলাই হবে ভারত জয় করার ২১ জুলাই।কী করা যায় সেটা ঠিক করুন। কেউ আমার সঙ্গে না থাকলে আমি একাই চলব। বাংলায় ধাক্কা খাক বিজেপি। ৪২-এ ৪২ থাক, বিজেপি গোল্লায় যাক। ২১-র অঙ্গীকার ৪২টি আসনের ৪২টিই গণতান্ত্রিকভাবে নেব, উন্নয়নও করতে হবে, এগিয়ে যেতে হবে। ১৯-এ ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে সভা করছি বিজেপিকে তাড়াব বলে। ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ২১ জুলাইয়ের থেকেও বেশি লোক নিয়ে আসতে হবে, ওটাই বিজেপিকে সবথেকে বড় ধাক্কা দেবে। এত লোক টাকা দিয়ে আসে না, ভালোবেসে আসে। বিজেপি টাকা দিয়ে লোক আনে।১৯ জানুয়ারি ব্রিগেড সভা, থেকে দিল্লি দখলের ডাক দেব। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে। ২৭ জুলাই নানুর দিবস, সেখানে সভা হবে। ২৮ জুলাই মেদিনীপুরের ওই মাঠেই তৃণমূলের সভা হবে। যারা প্যান্ডেল গড়তে পারে না, তারা দেশ গড়বে! সেপ্টেম্বরে রাজ্যে কনভেনশন করবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। ১ অগাস্ট থেকে বিজেপি হটাও দেশ বাঁচাও কর্মসূচি পালন হবে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এক-দুজনকে কেনা যায়। সবাইকে নয়। যাবেও না। কয়েকটা নেতাকে টাকা দিয়ে কেনা হচ্ছে, সবাইকে পারবে না। বিজেপির টাকা বিলি রুখতে হবে।এটা গণতন্ত্রের সংকট, এদের বিরুদ্ধে আমরা লড়ব । এরা বিচারবিভাগেও হস্তক্ষেপ করছে। বিজেপি শুধু ঘৃণা শেখাচ্ছে, দাঙ্গা শেখাচ্ছে। বিজেপিএলাকায় এলাকায় টাকা দিচ্ছে, বাইক দিচ্ছে, মোবাইল দিচ্ছে।তারা দেশ চালাচ্ছে। তারাই জ্ঞান দিচ্ছে। ওদের জ্ঞান আমাদের শুনতে হবে ?ওরা হিটলার-মুসোলিনির থেকেও নিজেদের বড় মনে করছে। বিচারবিভাগেও হস্তক্ষেপ করছে। আজকের পর আবার এজেন্সি লাগাবে। এরা এজেন্সি দিয়ে ভয় পাওয়ায়।
কেউ জলকে জল বলে, কেউ পানি বলে আর কেউ ওয়াটার বলে। এর থেকে বেশি তফাৎ নেই মানুষ মানুষে।রামায়ণ, মহাভারত ওদের অধিকার দেয়নি এসব করার। ওরা হিন্দু ধর্মকে অসম্মান করছে,ওদের কোনও অধিকার নেই এসব করার। বিজেপির হিন্দুত্বকে মানি না। এই তালিবানি সাম্প্রদায়িকতা ভাঙো, লুটেরার অত্যাচার ভাঙো। দলিত, সংখ্যালঘুর উপর অত্যাচার চলছে,এ সমস্যা মেটাতে হবে, দেশকে বাঁচাতে হবে, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। দাঙ্গা, খুন, চক্রান্ত করা যাবে না।বাইরের লোক এসে আরএসএসের নেতা সেজে বসে যাচ্ছে ব্লকে ব্লকে। এগুলো নজর রাখুন। মিথ্যা গুজব ছড়াচ্ছে বিজেপি। বিজেপি চলে গেলে আকাশে তারা উঠবে, সেগুলো সব ধর্ম সমন্বয়ের তারা। চাঁদ উঠবে, সেটা মানুষের চাঁদ। আগামীদিন সূর্য উঠবে, জনগণের সূর্য।

বিজেপি চলে যাওয়াই দেশের জন্য মঙ্গল, ওরা দেশ লুটছে । তালিবানি উগ্রপন্থা জন্মেছে, প্যান্ডেল নয় ওরা গোটা দেশ ভেঙে দিচ্ছে।মিথ্যা কথা বলছে দিন-রাত। প্রতিদিন গণপিটুনিতে মানুষের মৃত্যু হচ্ছে।
মণিপুরেও সমস্যা তৈরি করা হচ্ছে। অসমে বাঙালি খেদাও চলছে, আমি অসমিয়াদের ভালোবাসি। কৃষক, মহিলাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। কাল বিজেপিকে ভোট দেয়নি শিবসেনা, টিডিপি সঙ্গে ছিল তারাও সরে গেছে।

বাংলার মাটি খাঁটি। এ মাটি রাস্তা চেনায়।
এ মাটি দাঙ্গার মাটি নয়। বাংলায় বিনা পয়সায় চিকিৎসা হয়।১০০ দিনের কাজে বাংলা ১ নম্বর
বাংলাকে নিয়ে গর্ব করুন, দেশকে নিয়ে গর্ব করুন। আমি সোনার বাংলা গড়ব। প্রলয় রুখব, নতুন করে বাঁধ তৈরি করব। খানিক আগেই ছিল মেঘলা আকাশ, প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছিল। এখন আকাশ পরিষ্কার, তার মানে বিজেপি যাবে।রাজনৈতিক লড়াই আমাদের চলবে,সবাই বলছে বাংলাই পথ দেখাবে আগামীদিনে – ইমান কা নাম হ্যায় মুসলমান।

ভিতরে নম্বরে জিতলেও বাইরে নম্বর নেই। জ়িরো নম্বর
বিজেপির সিট কমে দাঁড়াবে ১০০-১৫০ তে। উত্তরপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, মধ্যপ্রদেশে সিট কমবে বিজেপির। আগামীদিনে তামিলনাড়ুতে এআইডিএমকে আর সিট পাবে না।গতকাল আস্থা ভোটে এআইডিএমকের ভোটে জিতেছে বিজেপি। জয়ললিতা বেঁচে থাকলে এটা হত না।
তালিবানি সন্ত্রাসের কথা বলছ, আগে নিজের দলের সভাপতিকে সামলাও। কখনও বলছে – জ্বালিয়ে দেব, কখনও বলছে পুড়িয়ে দেব। জন্মের সময় মুখে মধু দেয়নি।
সিপিএমের হার্মাদ বিজেপির ওস্তাদ!ওদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে কয়েকটা গদ্দার। বাংলায় জগাই-মাধাই-গদাই এক হয়েছে।আলিপুরদুয়ারে টাকা দিয়ে ভোট কেনা হয়েছে ।পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরও ভোট হয়েছে, আমরা জিতেছি। ওদের লজ্জা, ঘৃণা নেই। বিরোধীদের জন্য দুঃখ হয়। জঙ্গলমহলে অনেক আসনে তৃণমূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেনি, কই আমরা তো কিছু বলিনি। আমার হাতেও ক্ষমতা ছিল, কই আমি তো কিছু করিনি। ত্রিপুরায় সিপিএম পচে গেছিল। আনকন্টেসটেড সিট নিয়ে অপপ্রচার চলছে। অন্য রাজ্যেও এঘটনা ঘটে, তখন কিছু বলা হয় না।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কর্মসংস্থান নিয়ে নেত্রী বলেন সিভিক ভলান্টিয়ারদের হোমগার্ড করে দেওয়া হবে। মাইনে বেড়ে যাবে
প্যারা টিচারদের মাইনে বাড়িয়েছি
সিভিক পুলিশ নেওয়া হয়েছে। ৩০ লাখ বাড়ি, ৫ লাখ পাট্টা দেওয়া হয়েছে।হাসপাতালে ২৮ হাজার বেড বেড়েছে। তাছাড়াও কৃষক, মহিলাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমিও পাশে দাঁড়াই। ৩০ লাখ কৃষককে সাহায্য করেছি গতকাল কাগজ দেখে এক ছাত্রকে সাহায্য করেছি। আদিবাসীদের এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। মা-বোনদের সম্মান রাখতে হবে।

শেষে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন কখনই গরিব মানুষকে বঞ্চিত করবেন না, ওদের সেবা করাই আমাদের কাজ। কোনও পরিষেবা পেতে যাতে তারা সমস্যায় না পড়েন তা দেখবেন। ঝড়-জলে মানুষ বিপদে পড়লে সাহায্য করবেন। এমনভাবে নিজেকে গড়ে তুলুন যেন বলা যায় আমি একজন গর্বিত তৃণমূল কর্মী।মানুষের মতো মানুষ হয়ে বাঁচতে হবে
দাঙ্গা, খুন, চক্রান্ত করা যাবে না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!