এখন পড়ছেন
হোম > 2019 > December

একটি মাটির প্রদীপই পারে আপনার ভাগ্য ফেরাতে, জেনে নিন পদ্ধতি

  বাস্তুশাস্ত্র মাটির প্রদীপকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়। এই শাস্ত্র মতে, বিভিন্ন দেবতার উদ্দেশ্যে প্রজ্জ্বলিত মৃৎপ্রদীপ বিভিন্ন সুফল বহন করে।সনাতন ভারতীয় সংস্কৃতিতে মৃৎপ্রদীপ অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় যুগে যুগে অবতীর্ণ। সিন্ধু সভ্যতার ধ্বংসাবশেষেও অসংখ্য মাটির প্রদীপের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত যে কোনও উপাসনায় সনাতন ধর্ম মৃৎপ্রদীপকে বিপুল গুরত্ব দিয়ে থাকে।দেবমৃর্তির পূজাই

বঙ্গ বিজেপির রাজ্য সভাপতি হবেন কে? দিলীপের ভাগ্যে কি শিকে ছিড়ছে? জল্পনা তুঙ্গে

বঙ্গ বিজেপির রাজ্য সভাপতি কে হতে চলেছেন সেই নিয়ে জোর জল্পনা শুরু হয়েছে বঙ্গ জুড়ে। সোনা যাচ্ছে নতুন বছরেরে ৯ জানুয়ারি নতুন সভাপতি ঘোষণা হতে পারে। কিন্তু কে হতে পারেন নতুন সভাপতি? তা নিয়ে শুরু জোর জল্পনা। যদিও এই নিয়ে এখনো পর্যন্ত কেউ মুখ খুলতে না চাইলেও বঙ্গ বিজেপির অন্দরে

বড়সড় সুখবর রাজ্য সরকারি কর্মীদের জন্য, বাড়ছে বেতন জেনে নিন

  দীর্ঘদিন ধরেই বেতন বৃদ্ধি নিয়ে রাজ্যের তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে সরব সরকারি কর্মচারীরা। কিন্তু অবশেষে নতুন বছরে নতুন সুখবর পেতে চলেছেন রাজ্যের সেই সরকারি কর্মচারীরা। সূত্রের খবর, আগামীকাল 2020 সালের পয়লা জানুয়ারি থেকেই রাজ্যের সরকারি কর্মচারীদের জন্য লাগু হচ্ছে ষষ্ঠ বেতন কমিশন। যা নিঃসন্দেহে নতুন বছরের শুরুর দিনে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের মনে

পৌরসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী ঠিক করার দায়িত্ব প্রশান্ত কিশোরের, কারা পাবেন টিকিট! জোর গুঞ্জন!

  লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূল খারাপ ফলাফল করার পরেই দলের রণনীতিকার হিসেবে প্রশান্ত কিশোরকে নিয়োগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে তৃণমূলের দায়িত্ব নেওয়ার পরই ঘাসফুল শিবিরের রোগ ধরে ফেলেন ভোটগুরু। দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের দুর্নীতি এবং জনসংযোগের অভাবের ফলেই যে লোকসভায় তৃণমূলফলাফল করেছে, তা বুঝতে বাকি ছিল না প্রশান্ত কিশোরের। আর তাইতো একের পর

রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের জল্পনা বাড়িয়ে দিলেন বিজেপি নেতা , জেনে নিন

  রাজ্যের রাজ্যপাল হিসেবে জাগদীপ ধনকার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই সরকারের সঙ্গে রাজ্যপালের মতানৈক্য তৈরি হয়েছে‌। বিভিন্ন ইস্যুতে রাজভবনের সঙ্গে নবান্নের দূরত্ব দিনকে দিন বাড়তে শুরু করেছে। যাকে নিঃসন্দেহে রাজ্যের প্রশাসনিক এবং সাংবিধানিক কাঠামোর পরিপন্থী বলেই দাবি করেছে রাজনৈতিক মহল। আর রাজ্যপাল বনাম রাজভবনের তিক্ততার সম্পর্কের মাঝে গোদের ওপর বিষফোঁড়া হিসেবে দেখা

ভাটপাড়া নিজেদের দখলে রাখছে আসরে নামলেন অর্জুন সিং, জমজমাট ভাটপাড়া

  লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে উত্তর 24 পরগনায় বিজেপি তৃণমূলের কাছ থেকে একাধিক পৌরসভা নিজেদের দখলে আনতে সক্ষম হয়। যার প্রধান কারণ হিসেবে দেখা হয়, ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে দাঁড়ানোর অর্জুন সিংহের সাংসদ হয়ে যাওয়া। তৃণমূলের বিধায়ক হয়ে অর্জুন সিংহ দাপটের সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। পরবর্তীতে লোকসভা নির্বাচনে ব্যারাকপুরে টিকিট না

মহারাষ্ট্রে সাফল্যের পর পিকের টিম সমীক্ষা করতে এল বাংলায়, জেনে নিন বিস্তারিত!

  লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবির পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের রণনীতিকার হিসেবে নিয়োগ করেছিলেন প্রশান্ত কিশোরকে। আর তৃণমূলের দায়িত্ব নেওয়ার সাথে সাথেই দলকে শৃংখলায় বেঁধে একের পর এক নির্বাচনে তৃণমূলকে যাতে সাফল্য দেখানো যায়, তার চেষ্টা করেছিলেন ভোটগুরু। ইতিমধ্যেই তার সেই চেষ্টাতে সাফল্যও এসেছে। লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল সমীক্ষা চালিয়ে দিদিকে বলো কর্মসূচির মধ্য দিয়ে

নাগরিকত্ব আইনের স্বপক্ষে নজিরবিহীন মিছিল বিজেপির, অস্বস্তি কি বাড়ল তৃণমূলের! জোর জল্পনা

সম্প্রতি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সংসদে পাশ হয়ে গিয়েছিল। যার ফলে সেই বিলে স্বাক্ষর করে দিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। আর রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর হওয়ার পরেই সেই বিল আইনে পরিণত হয়ে যায়। আর নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরেই দেশজুড়ে তীব্র বিরোধিতা করতে শুরু করে একাংশ। ইতিমধ্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক পদযাত্রা করে এই

বিজেপি বিরোধী কর্মসূচিতে বেধড়ক মার খেলেন তৃণমূল কর্মীরা, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে!

  নাগরিকত্ব সংশোধনী ইস্যুতে বর্তমানে উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি। বিজেপির বিরুদ্ধে এই ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে প্রচারে ঝড় তুলে গেরুয়া শিবিরে কোণঠাসা করতে মরিয়া তৃণমূল কংগ্রেস। তবে নিজেদের দলের শৃঙ্খলা এবং ঐক্যবদ্ধ ভাব যদি না থাকে, তাহলে যে বিরোধী দলকে কাবু করা যাবে না, তা জানেন প্রত্যেকেই। কিন্তু তা সত্ত্বেও গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে বিদ্ধ তৃনমূল কংগ্রেস

ফের বড় ভাঙ্গন বিজেপিতে, তৃণমূলে যোগ দিলেন নেত্রী – জোর চাঞ্চল্য!

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকে রাজ্যে বিজেপির চরম উত্থান ঘটেছিল। তবে সম্প্রতি নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন লাগু হওয়ার পর অনেক নেতা-কর্মী বিজেপি ছাড়তে শুরু করেছেন। যার ফলে বেশ লাভবান হয়েছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে তৃণমূল ছেড়ে অনেকে বিজেপিতে চলে গেলেও, শুধুমাত্র এনআরসির কারণে বিজেপি ভালো মত প্রচার করতে

Top
error: Content is protected !!