এখন পড়ছেন
হোম > 2019 > November

উপনির্বাচনের হার ভুলে কাজ শুরু কৈলাশ-মুকুল-শঙ্কু ত্রয়ীর! তৃণমূলে ধরালেন বড়সড় ভাঙন

লোকসভা নির্বাচনে গোটা বাংলাকে চমকে দিয়ে বাংলা থেকে ১৮ টি লোকসভা আসন ছিনিয়ে নেয় বিজেপি। যারফলে রীতিমত চাপে পরে যায় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। কেননা সেই ফলাফলের 'আফটার এফেক্টে' ঝড়ের গতিতে ভাঙন শুরু হয়ে যায় ঘাসফুল শিবিরে। কৈলাশ-মুকুল যুগলবন্দিতে শাসকদলের পঞ্চায়েত প্রতিনিধি থেকে বিধায়ক - সর্বস্তরে রীতিমত লাইন পরে যায়

উপনির্বাচনে মুখ থুবরে পড়েছে বাম-কং জোট! অস্তিত্ব প্রমাণের শেষ সুযোগ মিলছে আজই?

2016 সালে বাম কংগ্রেস জোট করে ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখেছিল। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। পরবর্তীতে 2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে তারা জোটের চিন্তাভাবনা করলেও দুই দলের মধ্যে ঐক্যের অভাব দেখা গেছে। তবে রাজ্যের সদ্যসমাপ্ত 3 কেন্দ্রের বিধানসভা উপনির্বাচনের আগে নিজেদের মধ্যে জোট করে নিয়েছিল বাম এবং কংগ্রেস। যার পরিপ্রেক্ষিতে

উপনির্বাচনে ভরাডুবি হতেই বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে ফেরার হিড়িক! পথ দেখাচ্ছেন অনুব্রত!

লোকসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যে তৃণমূলের কিছুটা ধ্বস নামলেও বীরভূম জেলায় দুটি সিটই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উপহার দিয়েছেন অনুব্রত মণ্ডল। তবে অনেক বুথেই হেরে যেতে হয়েছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। যার ফলে বীরভূম জেলার দুটি লোকসভা আসন তৃণমূল দখল করলেও, সারা রাজ্যে বিজেপি 18 আসন পাওয়ায় বীরভূমে যে তার প্রভাব পড়বে, সেই

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যেতেই “গায়েব” 7 পঞ্চায়েত সদস্য! শুরু তীব্র রাজনৈতিক টানাপোড়েন

লোকসভা নির্বাচনে এবার উত্তরবঙ্গে ধরাশায়ী অবস্থা হয়েছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের। উত্তরবঙ্গের আটটি লোকসভা আসনের মধ্যে সাতটিতেই ফুটে গিয়েছিল পদ্মফুল। আর একটি গিয়েছিল হাত শিবিরের দখলে। আর নির্বাচনের ফলাফলের প্রভাব যে পরবর্তী রাজনৈতিক অবস্থার উপর পড়বে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত ছিল প্রত্যেকেই। সেই মত উত্তরবঙ্গে এই লোকসভার ফলাফল বেরোনোর পর

রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রীর পাড়াতেই মাদক ব্যবসার রমরমা! পুলিশে গেল তৃণমূল! শোরগোল রাজ্যজুড়ে!

আইনরক্ষকদের সামনেই আইনকে পদদলিত করার অনেক ঘটনা এরাজ্যে ঘটেছে। তবে সাধারণ মানুষ অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থানের সুরক্ষায় নিজেদের পছন্দের প্রার্থীদের নির্বাচিত করলেও, সেই প্রার্থীদের নাকের ডগা দিয়ে যখন আইনবিরুদ্ধ কাজ হয়, তখন নিঃসন্দেহে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। শিলিগুড়ি শহরের 17 নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা তৃণমূল বিধায়ক তথা রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব।

উপনির্বাচনে 3-0 হতেই, বিজেপিকে শীঘ্রই আরও বড় ধাক্কা দিতে ঘুঁটি সাজিয়ে ফেলল তৃণমূল

লোকসভা নির্বাচনে তিনি তৃণমূলের প্রার্থী হতে পারেননি। তার ফলেই তৃণমূল ছেড়ে বেরিয়ে এসে ভারতীয় জনতা পার্টির জার্সি পড়ে নিয়েছিলেন অর্জুন সিংহ। এমনকি ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়ে নিজের জয় নিশ্চিত করেছিলেন তিনি। আর ব্যারাকপুরে বিজেপি জয়লাভ করার পরেই সেই অর্জুন সিংহের হাত ধরে তৃণমূলের দখলে থাকা একের পর

বড়সড় সুখবর চাকরি প্রত্যাশীদের জন্য! রাজ্যের শিক্ষক নিয়োগের আইনে বড়সড় পরিবর্তন

অবশেষে বহু প্রতীক্ষার অবসান ঘটতে চলেছে। আপার প্রাইমারির শিক্ষক হতে গেলে এবার থেকে গ্রাজুয়েশনে আর 50% নম্বর বাধ্যতামূলক নয়। জানা গেছে, গত 2011 সালের 29 শে জুলাইয়ের আগে যদি কেউ বিএড কোর্সে তাদের নাম নথিভুক্ত করান, তাহলে এই নম্বরের ক্ষেত্রে কোনো রকম কড়া নিয়ম থাকছে না। কিন্তু এই সংশ্লিষ্ট সময়ের

আচ্ছে দিনের স্বপ্ন দেখি বুরে দিন উপহার! মোদি জমানায় রেকর্ড পতন দেশের আর্থিক বৃদ্ধির!

ভারতবর্ষের নরেন্দ্র মোদি দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরই তাদের প্রধান লক্ষ্য ছিল ভারতবর্ষের অর্থনীতিকে 5 লক্ষ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থনীতি তৈরি করা। কিন্তু দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই ভারতবর্ষ জুড়ে যে পরিমান অর্থনৈতিক মন্দা চলছে, তাতে করে 5 লক্ষ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থনীতি তো দূরের কথা, বর্তমান অর্থনীতিও অনেক বেহাল

বিধানসভার আগে মমতার মাস্টারস্ট্রোক! এবার মিসডকল বা এসএমএসেই পাওয়া যাবে ৫ হাজার টাকা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনেক প্রকল্পের কথা রাজ্যবাসীরা ভালোমতোই জানেন। তবে বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মহিলাদের জন্য অভিনব এমন একটি প্রকল্প এনেছেন, যার নজির অতীতে পাওয়া বিরল। জানা যাচ্ছে, স্বনির্ভর দলের মহিলাদের জন্য এবং সব দিক থেকে মহিলাদের স্বনির্ভর করার জন্য "জাগো" নামে একটি নতুন প্রকল্প সূচনা করেছে মমতা

ভাঙবেন তবু মচকাবেন না! উপনির্বাচনের হারের পর নাকি নতুন “ওষুধ” বের করে ফেলেছেন দিলীপ ঘোষ!

খড়গপুর থেকে শুরু করে কালিয়াগঞ্জ, সবখানেই জেতার ব্যাপারে আত্মপ্রত্যয়ী ছিল ভারতীয় জনতা পার্টি এবং বঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এমনকি ষষ্ঠ রাউন্ড শেষে যখন খড়্গপুরে রীতিমতো বড় ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস, তখনও পর্যন্ত একটি বেসরকারি নিউজ চ্যানেলে ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে দিলীপবাবু বলেছিলেন, "শেষ পর্যন্ত ভারতীয় জনতা পার্টি জিতবে।" কিন্তু

Top
error: Content is protected !!