এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ২০১৯ এ কে হবেন প্রধানমন্ত্রী, বেসরকারি নিউজ চ্যানেলের সমীক্ষা

২০১৯ এ কে হবেন প্রধানমন্ত্রী, বেসরকারি নিউজ চ্যানেলের সমীক্ষা

দিল্লির মসনদে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর পদে কার অভিষেক হতে চলেছে? এই মুহূর্তে এটাই রাজনৈতিকমহলের সবথেকে চর্চিত প্রশ্ন। ১৯’এর লোকসভা ভোটের কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। সব ঠিকঠাক থাকলে মার্চের প্রথম দিকেই লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ জানতে পারা যাবে। আর মে-জুন নাগাদ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের পরীক্ষা। এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এই প্রেক্ষিতে বিভিন্ন সংস্থা লোকসভা নির্বাচনের সম্ভাব্য ফলাফলের সমীক্ষা প্রকাশ্যে এনে আরো শোরগোল ফেলে দিয়েছে। সম্প্রতি এমনই একটি সমীক্ষা সামনে এনেছে দ্য ন্যাশনাল সার্ভে ট্রাস্ট ২০১৯। আসন্ন লোকসভা ভোটে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে কে এগিয়ে রয়েছেন,বেসরকারি নিউজ চ্যানেলের সমীক্ষায় উঠে এল সেই চিত্র।

১৯’এর নির্বাচনী যুদ্ধের ফলাফলের ইঙ্গিত দিতে ২৩ টি রাজ্য থেকে ৩৫ হাজার মানুষের মত নিয়েছে এই বেসরকারি নিউজ চ্যানেল। তার উপর ভিত্তি করেই তৈরি করা হয়েছে সমীক্ষা। তাতে স্পষ্ট উঠে এসেছে বিরোধীদের টেক্কা দিয়ে এবারও কেন্দ্রের ক্ষমতায়৷ ফিরতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোদীকে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী পদে দেখতে চান ৫২.৮% মানুষ।

এরপরেই রয়েছেন জাতীয় কংগ্রেস সুপ্রিমো রাহুল গান্ধী। সদ্য সমাপ্ত তিন রাজ্যের বিধানসভা ভোটে বিজেপিকে হারিয়ে ক্ষমতায় এসে আত্মবিশ্বাস অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে রাহুল গান্ধী। রাহুল ভক্তরা অনেকেই তাকে ভাবী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দেখার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে যথেষ্ট সদিচ্ছা করেছে কংগ্রেসের হাইকমান্ডারের। তবে সমীক্ষা বলছে,প্রধানমন্ত্রী হওয়ার রেসে মোদীকে ছাপিয়ে যেতে পারবেন না রাহুল। ২৬.৯% মানুষ প্রধানমন্ত্রী হিসাবে রাহুল গান্ধীকে দেখার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। রাহুলের থেকে দ্বিগুন ভোটে এগিয়ে রয়েছেন মোদী৷ সমীক্ষা অনুযায়ী,দেশের পরবর্তী সরকার ফের গঠন করতে চলেছে বিজেপি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

নরেন্দ্র মোদী এবং রাহুল গান্ধীর পরের স্থানটিতে রয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল নেত্রীকে প্রধানমন্ত্রী পদে দেখতে চেয়েছেন দেশের ৪.২% মানুষ। মহাজোটের মুখ হিসাবে তিনি এগিয়ে থাকলেও দেশের আগামী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখতে চাইছে দেশ,এই ধারণা স্পষ্ট করল সমীক্ষা।

প্রসঙ্গত,তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা তো বটেই দেবেগৌড়া,চন্দ্রবাবু নাইডু,রাহুল গান্ধী,প্রনব মুখোপাধ্যায়ের মতো রাজনৈতিক হেভিওয়েটরা দেশের আগামী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষে সওয়াল তুলেছিলেন। কিন্তু তাঁদের সেই মনবাঞ্ছা ১৯’এর লোকসভা ভোটে পূরণ হবে না বলেই ইঙ্গিত দিল সমীক্ষা।

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রতিযোগিতায় নাম লিখিয়েছেন বসপা সুপ্রিমো মায়বতীও। সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব মায়াবতীকে এই পদে দেখার ইচ্ছে ব্যক্ত করেছিলেন। বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করতে মায়াবতীর সঙ্গে সম্প্রতি জোটও বেঁধেছেন অখিলেশ। এই মায়াবতীকে প্রধানমন্ত্রী পদে দেখতে চেয়েছেন মাত্র ২.৮% মানুষ।

অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দাবীদার হিসাবে উল্লেখযোগ্য চারজনের মধ্যে সবথেকে পিছিয়ে রয়েছেন মায়াবতী। তবে উত্তরপ্রদেশে পিসি-ভাইপোর জোট মোদীকে হারাতে বড় ভূমিকা নেবে বলেই মনে করছেন অভিজ্ঞমহল।

গত পাঁচ বছরে মোদী কেমন কাজ করেছে দেশে? এ প্রশ্নের উত্তরে ১৯.৯% মানুষ এককথায় বলেছেন,’আউটস্ট্যান্ডিং’। ‘ভালো’ বলেছেন ৩৬% মানুষ। ‘এভারেজ পারফরম্যান্স’-এ ভোট দিয়েছেন ২১.৪% মানুষ।

আর ১৮.৭% মানুষ মোদীর কাজকে ‘খারাপ’ বলেছেন। এছাড়া ৪% মানুষ এ বিষয়ে কোনো মতামতই প্রকাশ করেননি। কাজেই দ্য ন্যাশনাল সার্ভে ট্রাস্ট ২০১৯-এর সমীক্ষা অনুযায়ী মোদী যে ফের দেশের ক্ষমতায় ফিরছে,এই তথ্যে ভরসা রেখেছেন অনেকেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!