এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > লক্ষ্য ২০১৯- বাংলায় বুথস্তর থেকেই সংগঠন শক্তিশালী করার বিশেষ পরিকল্পনা পাঠালেন অমিত শাহ

লক্ষ্য ২০১৯- বাংলায় বুথস্তর থেকেই সংগঠন শক্তিশালী করার বিশেষ পরিকল্পনা পাঠালেন অমিত শাহ

আসন্ন লোকসভা ভোটে পশ্চিমবঙ্গের ২২ টি আসনে গেরুয়া ঝান্ডা গাড়ার পরিকল্পনা জাতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের। সেই সঙ্গে আরো ১০ টি লোকসভা কেন্দ্রের উপরও নজরদারি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন রাজ্য বিজেপিকে।  কিন্তু বুথস্তরে সংগঠন শক্তিশালী না হলে জয়ের লক্ষমাত্রা যে কিছুতেই ছোঁয়া যাবে না এটা বিলক্ষণ জানেন অমিত শাহ। তাই এই ইস্যুকেই পাখির চোখ করে প্রতি সাতটি করে বুথ পিছু একজন করে নেতা নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিলেন জাতীয় বিজেপি নেতৃত্ব । নাম দেওয়া হয়েছে ‘শক্তি কেন্দ্র প্রমুখ’। লোকসভা ভোটের আগে বুথ কমিটি গুলো কেমন কাজ করছে,মানুষের সঙ্গে কতোটা যোগাযোগ রাখছে, মোদীর সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের প্রচার দলীয় বুথের কর্মীরা ঠিকঠাক করছে কিনা,সেসবের উপর নজরদারি রাখতেই ‘শক্তি কেন্দ্র প্রমুখ’ নামে নেতাদের নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অমিত শাহ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

আগামী লোকসভা ভোটের জন্যে প্রস্তুতিতে কোনো খামতি রাখতে রাজি নন শাহ। বাংলায় বিজেপির আসন সংখ্যা বাড়াতেই হবে। এই লক্ষ্য স্থির রেখেই যেমন কোলকাতার মুরলীধর লেনের রাজ্য নেতৃত্বকে বিজেপির ভাবমূর্তি বুঝতে নির্দেশ দিয়েছেন তেমনি শক্তিকেন্দ্র প্রমুখ নামের নেতাদের নিয়োগ করে সমাজের নীচুতলার মানুষের রিপোর্টও পেতে মরিয়া অমিত শাহ। এই শক্তি কেন্দ্র প্রমুখের নেতাদের নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিতেও শিবিরের আয়োজন করতে চলেছে দল।

জানা গিয়েছে,চলতি মাসেরই দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই বুথ সভাপতি এবং শক্তি কেন্দ্রের প্রমুখদের নিয়ে প্রশিক্ষণের আয়োজন করবে বিজেপি। এবং এটি প্রশিক্ষণ পর্ব চলবে একদম সেপ্টেম্বরের প্রথম মাস অব্দি। রাজ্যের শীর্ষ নেতৃত্বরা তো বটেই, এমনকী বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতারাও বিভিন্ন সময়ে এসে সেই প্রশিক্ষণ শিবিরে যোগ দেবেন। এ প্রসঙ্গে বিজেপির অন্যতম কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সহনেতা সুরেশ পুজারি জানালেন,‘শক্তি কেন্দ্র প্রমুখদের নিয়ে এহেন প্রশিক্ষণ শিবিরে আমরা মূলত দলের তৃণমূলস্তরের সাংগঠনিক শক্তিরই চুলচেরা বিশ্লেষণ করতে চাইছি। কারণ নিচুতলার সংগঠন মজবুত না হলে বিজেপির পক্ষে বাংলায় প্রভাব বিস্তার করা কোনওমতেই সম্ভব নয়। দলের সভাপতি অমিত শাহ নিজে বারবার বুথস্তরের সংগঠন বৃদ্ধির উপর জোর দিয়েছেন। সেই কর্মসূচি বুথে বুথে কতটা রূপায়িত হল, তা আমরা বুঝে নিতে চাইছি।’

উল্লেখ্য,রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা গেছে, আগামী ১১ আগষ্ট কোলকাতার মেয়ো রোডে বিজেপির যুব সংগঠনের একটি সমাবেশে হাজির হবেন পদ্মবাহিনীর জাতীয় নেতৃত্ব অমিত শাহ। রাজ্যের বিজেপি নেতাদের সঙ্গে দলীয় সাংগঠনের অবস্থা নিয়ে ফের একবার বৈঠকে বসার সম্ভাবনা রয়েছে অমিত শাহের। একের পর এক কর্মসূচির জেরে লোকসভা ভোটের আগে কর্মতৎপরতা তুঙ্গে রয়েছে রাজ্য বিজেপি শিবিরে।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!