এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > লক্ষ্য ২০১৯ আর দলীয় নেতা কর্মীদের কড়া বার্তা অনুব্রতর

লক্ষ্য ২০১৯ আর দলীয় নেতা কর্মীদের কড়া বার্তা অনুব্রতর

অনুব্রত গড়ে পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন কর্মসূচি শুরু করা হবে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে। এদিন বোলপুল গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে জেলা কমিটির বৈঠক সম্পন্ন হল শাসক দলের। সেখানেই পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি এবং সহসভাপতির নাম ঘোষণা করলেন তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। এই বৈঠকেই চূড়ান্ত করা হয় পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠনের তালিকা এবং বোর্ড গঠন কর্মসূচি শুরু করার দিনক্ষণ। বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই জানালেন অনুব্রত বাবু।

তবে পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনের পাশাপাশি আসন্ন লোকসভা ভোটের প্রস্তুতিতেও সমান নজর রয়েছে অনুব্রত বাবুর। জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় পৌছাতে এবং বিজেপি হটাও কর্মসূচিতে কোনোরকম ঢিলেমি বরদাস্ত করবেনা তিনি। এমন সতর্কতা আগেও দিয়েছেন তৃণমূলের এই হেভিওয়েট নেতা। হাজার মন্তব্য বিতর্কে তাঁর নাম জড়ালেও বীরভূমে তাঁর দাপটে চিড় ধরেনি মোটেও। বরং সময়ের সাথে সাথে বীরভূমে তৃণমূল কংগ্রেসের পায়ের তলার মাটি আরো শক্ত হয়েছে। এর নেপথ্যে যে রয়েছেন অনুব্রত মন্ডল,এ কথা বহুবার স্বীকার করেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিনের বৈঠকের পর সাংবাদিকমহল থেকে প্রশ্ন এসেছিল- লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি পর্বে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে অনুব্রত বাবুর বার্তা কী? চিরাচরিত রীতিতে হুঁসিয়ারী মন্তব্য নেতা জানালেন,কোনো দুর্নীতিমূলক কর্মকান্ডে দলীয় কর্মীদের নাম জড়ালেই তাঁর বিরুদ্ধে কড়া শাস্তিবিধান নেমে আসবে। রিপোর্ট যাবে নেত্রীর কাছে। শুধু তাই নয়,তাকে ওই পদ থেকে ছাটাই করা হবে। অর্থাৎ অনুব্রত বাবু স্পষ্ট সতর্কতায় কর্মীদের বুঝিয়ে দিলেন লোকসভা ভোটের আগে আমজনতার সামনে তৃণমূল কংগ্রেসের ভাবমূর্তিকে স্বচ্ছ রাখতে হবে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনের প্রসঙ্গ টেনে বললেন,গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের কাজ প্রায় শেষের মুখে। জেলা পরিষদের তালিকাতেও শীলমোহর পড়ে গেছে। চলতি মাসের ২৩ তারিখের পর সব ঘোষণা করা হবে। তাই তিনি কর্মীদের কোমর বেঁধে এবার কর্মযজ্ঞ ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দিলেন। মানুষের হয়ে মানুষের জন্য পরিষেবা দেওয়ার বার্তা দিলেন কর্মীদের। এবং এটাও বোঝালেন একমাত্র জনসংযোগ বাড়ালেই লোকসভা ভোটের জয়ের দিকে কয়েক ধাপ এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে। এর পাশাপাশি ধর্মীয় সম্প্রীতি নিয়ে মন্তব্য করেও তৃণমূল কংগ্রেসের উদার মানসিকতার পরিচয় রাখলেন। বললেন,”আমরা হিন্দু-মুসলিম একসঙ্গে মহরম করি। হিন্দু-মুসলিম একসঙ্গে দুর্গাপুজা করব।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!