এখন পড়ছেন
হোম > 2018 > July

অসমের নাগরিকপঞ্জী নিয়ে এবার মুখ খুলতে শুরু করলেন বিদ্বজনেরা,চাপ বাড়ছে কি সরকারের?

রাতারাতি অস্তিত্ব সংকট অবস্থার শিকার হলেন অসমে থাকা ৪০ লক্ষ বাঙালি। জাতীয় নাগরিক পঞ্জীর দ্বিতীয় তালিকা থেকে বাদ পড়ল তাঁদের নাম। অথচ খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে,এঁদের অধিকাংশই পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময় ধরে অসমে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন । এঁদের কাছ থেকেই প্রমাণস্বরূপ এমন কিছু নথি চাওয়া হয়েছে,যা দেখাতে না পারলেই

শাসকদলের চাপ বাড়িয়ে এবার বিমল গুরুঙের সুরে সুর মেলালেন মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ নেতা

"পাহাড় বাংলার অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। কাঞ্চনকন্যাকে ভাগ করতে দেব না।" ক্ষমতায় আসার পর থেকেই এই দাবি করে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার কারনে পাহাড়কে আলাদা রাজ্য করার দাবি তুললে তৎকালীন মোর্চা সভাপতি বিমল গুরুংয়েল সাথে খন্ডযুদ্ধ বাঁধে সরকারের।মৃত্যু হয় এক পুলিশকর্মীর। পরে অবশ্য বিমল গুরুংকে পাহাড় ছাড়া করে মোর্চার সভাপতি হিসেবে

পঞ্চায়েতে ভালো ফল হলেও বড়সড় রদবদল হতে চলেছে বিজেপি নেতৃত্ত্বে

এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে এরাজ্যে বেশ কটি জেলায় ভালো ফল কলেছে বিজেপি। যার জেরে কার্যত নাভিশ্বাস উঠেছে শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেসের। উত্তরবঙ্গের আলিপুরদুয়ারের  66 টি পঞ্চায়েতের মধ্যে 8 টি এবং 6 টি পঞ্চায়েত সমিতিতল মধ্যে কুমারগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতি ও কুমারগ্রাম ব্লকেরই 1 টি জেলাপরিষদ আসন নিজেদের দখলে এনেছে বিজেপি। মোটের ওপর এ

সার্বিক পরিস্থিতির খোঁজখবর নিতে অসমে যাচ্ছেন তৃণমূলের প্রতিনিধিদল

অসমের নগরকোট তিনটি চূড়ান্ত খসড়া থেকে 40 লাখ লোকের নাম বাদ যাওয়া নিয়ে নবান্নে আগেই মন্তব্য করেছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছিলেন কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অসমের প্রতিনিধিদল পাঠিয়ে সেখানকার সার্বিক পরিস্থিতির বিষয়ে খোঁজখবর নেবেন এবং সেইমতো অসম পরিদর্শনে যাচ্ছেন প্রতিনিধিদল। ২ রা আগস্ট যাওয়ার কথা হচ্ছে। সেই প্রতিনিধি দলে রয়েছেন

তৃণমূল নেতা খুনে নতুন মোড় – ইঁট দিয়ে মাথা থেঁতলে খুন, ধৃত ৭০ বছরের সন্দেহভাজন

অবশেষে ভেদ হল রহস্য। মধ্যমগ্রামের দিগবেড়িয়া এলাকার কারখানা চত্বরে মধ্যমগ্রাম পুরসভার  তৃনমূল কংগ্রেসের 1 নং ওয়ার্ডের সভাপতি সুধীর দাসকে খুনের ঘটনায় তাঁরই সহকর্মী 70 বছর বয়সী শিবপদ সরকারকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। জানা যায়,  শনিবার সকালে কারখানা চত্বরে কাজে গেলেও আর বাড়ি না ফেরায় রবিবার ভোররাতে সেই কারখানার পাশে একটি সেপ্টিক

দলীয় চেয়ারপার্সনকে সড়াতে বামেদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে অনাস্থা আনল তৃণমূল কাউন্সিলররা

এ যেন এক নজিড় হয়ে থাকল ডানকুনি পুরসভায়। দলের চেয়ারম্যানকে সরাতে বামেদের সাথে হাত মেলালেন তৃনমূল কাউন্সিলারেরা। কিন্তু  তৃনমূল পরিচালিত পুরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কেন অনাস্থা আনার সিদ্ধান্ত নিলেন সেই তৃনমূলেরই কাউন্সিলারেরা? জানা যায়, 21 আসনের ডানকুনি পুরসভায় তৃনমূল 11, বাম 8, কংগ্লেস ও নির্দল একটি করে আসন পায়। কিন্তু চেয়ারম্যান

মদন-গড়ে দুই ক্লাবের মারামারিতে রণক্ষেত্র এলাকা, ফাটল মাথা – চলল গুলি!

এবার ক্লাবে ক্লাবে গন্ডগোলে চরম উত্তাপ ছড়াল প্রাক্তন পরিবহনমন্ত্রী তথা বর্তমান তৃনমূল নেতা মদন মিত্রের খাসতালুকে। জানা গেছে, কামারহাটি পুরসভার 29 নং ওয়ার্ডে একটি 4 নং রেলগেট রয়েছে।সেই রেলগেট সংলগ্ন একটি ক্লাবের সম্পাদক পদ থেকে গত 1 বছর আগে কাউন্সিলর রুপালী সরকারের অনুগামী অভয় তেওয়ারীকে সরিয়ে নতুন সম্পাদক করা হয়

তৃণমূল বিধায়ক ঘনিষ্ঠ জেলা পরিষদের জয়ী প্রার্থীকে মারধরে আঙ্গুল উঠল দলেরই অন্য গোষ্ঠীর দিকে

জেলায় জেলায় তীব্র গোষ্টীদ্বন্দ্বে লিপ্ত হয়ে সমস্যায় জর্জরিত শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেস। এবারে ঘটনাস্থল খানাকুলের বলপাইয়ের খুনিয়াচক এলাকা। অভিযোগ, রবিবার সন্ধ্যায় এই এলাকা থেকে নিজের বাড়ির দিকে ফিরছিলেন খানাকুলের তৃনমূল বিধায়কের প্রতিনিধি তথা জেলা পরিষদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয়ী প্রার্থী রমেন প্রামানিক। সেইসময়ই তাঁকে দলেরই কয়েকজন মিলে মারধর করে তাঁর কাছ থেকে

মেয়রের বিবাহবিচ্ছেদ মামলায় নতুন মোড়,মামলায় আর শুনানি চান না বিচারপতি!

মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের দাম্পত্য সমস্যা নিয়ে কম জলঘোলা হচ্ছে না রাজ্য রাজনৈতিক স্তর সহ প্রচারমাধ্যমে। দীর্ঘদিন ধরে  হাইকোর্টে মামলা চলছে শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং রত্না চট্টোপাধ্যায়ের বিবাহ বিচ্ছেদের। তবে এবার হাইকোর্টের বিচারক তাঁর এজলাসে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের দায়ের করা বিবাহ বিচ্ছেদের মামলার শুনানি আর চান না। তিনি এই মামলা পাঠিয়ে দিলেন দক্ষিণ

আসাম অনুপ্রবেশ বিতর্কে – মমতা বান্দ্যোপাধ্যাকে ‘মাসি’ বলে বিতর্ক বাড়ালেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়

নাগরিকত্ব হারানোর আশঙ্কায় ভুগছেন অসমের ৪০ লক্ষ বাঙালি। দীর্ঘদিন ধরে ভারতে বসবাস করেও শুধুমাত্র সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে সমস্যায় পড়ল তাঁরা। অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জীকরণের বা এনআরসির চূড়ান্ত খসড়ার তালিকা থেকে বাদ গেলো ৪০ লক্ষ বাঙালি।  সম্পূর্ণ রাজনৈতিক বিভেদ ঘটিয়ে নিজেদের মুনাফা লোটার উদ্দেশ্যে বিজেপি সরকার আসামে বসবাসকারী বাঙ্গালীদের বিদেশি তকমা

Top
error: Content is protected !!