এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ওয়াই ক্যাটাগরি আওতায় আসলেন দুই বিধায়ক, বাড়ল রাজনৈতিক জল্পনা

ওয়াই ক্যাটাগরি আওতায় আসলেন দুই বিধায়ক, বাড়ল রাজনৈতিক জল্পনা

কিছুদিন আগেই সদ্য তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগী বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের পুত্র তথা বীজপুরের তৃণমূল বিধায়ক শুভ্রাংশু রায় নিজের এলাকাতেই নিজের প্রাণহানির আশঙ্কা করে ও তা লিখিত ভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। যদি একজন বিধায়কই নিজের এলাকাতে প্রাণহানির আশঙ্কা করেন তাহলে সাধারণ মানুষের সুরক্ষা কোথায় – উঠে গিয়েছিল সে প্রশ্ন। যদিও অন্য একটি অংশের মত ছিল, এসব আসলে মুকুল রায়ের ‘গেম’, তাঁর পুত্র এখনো শাসকদল ছাড়েননি বা বারেবারেই বলেছেন তিনি তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে কোথাও যাবেন না, সেই পরিস্থিতিতে যদি শাসকদলের বিধায়ক হিসাবে এমন প্রশ্ন তোলেন তাহলে বিজেপি বিরোধীদল হিসাবে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিরোধিতার সুর চড়াতে পারবে সহজেই।
কিন্তু প্রকারান্তরে দেখা যাচ্ছে, কোনো নির্বাচিত জন প্রতিনিধি না হওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্র ইতিমধ্যেই মুকুল রায়ের জন্য য়াই প্লাস ক্যাটাগরির নিরাপত্তা দিয়েছে। আর রাজ্য সরকার ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের দুই বিধায়ক – নৈহাটির পার্থ ভৌমিক ও ভাটপাড়ার অর্জুন সিংহকে ওয়াই ক্যাটেগরির নিরাপত্তা দিল। আর তারফলেই রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠে গেছে – কোথাও কি তাহলে শুভ্রাংশু রায়ের তোলা প্রশ্নই সত্যি? নাহলে কেন ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের নেতাদেরই বেছে বেছে এরকম উচ্চ নিরাপত্তা বলয় দিতে হচ্ছে? রাজ্যের আইনশঙ্খলার কি দ্রুত অবনতি হচ্ছে? রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা সামগ্রিক রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করার সময় এখনো আসেনি, কিন্তু মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে যে চাপা রাজনৈতিক উত্তেজনা ক্রমশ বাড়ছে এই ঘটনা তারই প্রমান।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!