এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ভাড়াটিয়া-মালিক ঝামেলাতেও শাসকদলের দুই হেভিওয়েটের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

ভাড়াটিয়া-মালিক ঝামেলাতেও শাসকদলের দুই হেভিওয়েটের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়ার দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে আবারও সামনে এল শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ। টালিগঞ্জ থানা এলাকার ৯/১ A গোপাল ব্যানার্জী লেনের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতভর উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। ঘটনার সূত্রপাত হয় টালিগঞ্জ এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা হিমাংশুবাবু তাঁর বাড়িতে দীর্ঘদিন ভাড়া থাকা অজয় গুপ্তকে সম্প্রতি বাড়ি ছাড়তে বলায়। হিমাংশুবাবুর অভিযোগ, অজয়বাবু ভাড়া দিতেন না, উল্টে ভাড়া চাওয়া হলে গালিগালাজ করতেন। বিষয়টি নিয়ে তিনি স্থানীয় কাউন্সিলর তথা কলকাতা পৌরনিগমের চেয়ারপার্সন মালা রায়ের দ্বারস্থ হন। অজয়বাবুর তরফে অভিযোগ, সোমবার মালা রায়ের অনুগামীরা এসে বাড়ি থেকে বের করে দেয় তাঁকে। শীতের রাতে কোনোমতে কালীঘাট মন্দির চত্বরে রাত কাটান তিনি ও তাঁর পরিবার।
এরপর বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী শোভনদেব চট্টপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হন অজয়বাবু। মুখ্যমন্ত্রীকেও একটি চিঠি দেওয়া হয় এই ব্যাপারে। তারপর গতরাতে শোভনদেব চট্টপাধ্যায়ের অনুগামীরা অজয়বাবু ও তাঁর পরিবারকে বাড়িতে ঢুকতে সাহায্য করেন। এরপর এই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন মালা রায়। অজয় বাবুকে দিয়ে স্ট্যাম্প পেপারে সই করানো হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন অজয়বাবু। পুলিশের হস্তক্ষেপে আপাতত ওই বাড়িতেই আছেন অজয় বাবু ও তাঁর পরিবার বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে। এমনকি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ, অশান্তির আশঙ্কায় এলাকায় চলছে পুলিশ পেট্রোলিং। ভাড়াটিয়া অজয়বাবু এর পরিপ্রেক্ষিতে টালিগঞ্জ থানায় পৌরনিগমের চেয়ারপার্সন মালা রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!